রাজশাহী বৃহঃস্পতিবার, ১১ই আগস্ট ২০২২, ২৮শে শ্রাবণ ১৪২৯

নাচোলে

৭ বছরের শিশু কে ধর্ষনের চেষ্টা


প্রকাশিত:
১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৫:১১

আপডেট:
১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ১৫:৩৩

ছবি: সংগৃহীত

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে ৫০ বছরের এক বৃদ্ধা কর্তৃক ৭ বছরের এক শিশু কন্যাকে ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে ভুক্তভোগির পরিবার কে নানা ভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে লম্পটের পরিবার। পরিবার ও স্থানীয় এলাকাবাসী সুত্রে জানাগেছে,গত শনিবার বিকাল ৪টার দিকে বাড়ির পাশে বন্ধুদের সাথে খেলা করছিল নেজামপুর ইউনিয়নের বটতলা (ডাকাত পুকুর) গ্রামের জাহাঙ্গীর ঘোষের ফুটফুটে ৭ বছরের শিশু কন্যা ।

খেলার এক পর্যায়ে শিশুটিকে আখের ও খাবারের প্রলোভন দেখিয়ে বরেন্দ্রা মোড়ে কাঁশ ফুলের বাগানে নিয়ে যায় একই গ্রামের মৃতঃ উজ্জল এর ছেলে ফটিক (৫০) । পরে লম্পট ফটিক শিশু কন্যাকে একা পেয়ে কাঁশ বাগানে শিশু কন্যার জামাকাপড় খুলে স্পর্শকাতর স্থানে হাত বুলিয়ে ধর্ষনের চেষ্টা করে। এতে শিশুটি লম্পটের পাষন্ড শারিরীক অত্যাচারে চিৎকার করতে থাকলে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে শিশুটি কে রক্ষা করে।


কন্যাশিশুর পিতা জাহাঙ্গীর ঘোষ জানান,আমার ফুটফুটে মেয়েটি কে ফটিক শারিরীক ভাবে নির্মম অত্যাচার করে। মেয়েটির শরীরে প্রথমদিন ক্ষতের নানা চিহ্ন দেখা যায়। আমি থানায় লম্পাট ফটিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে চাইলে লম্পট ফটিকের ভাই বিভিন্ন ভাবে আমাকে ও আমার পরিবার কে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে হুমকি দিচ্ছে। আমার মেয়ের উপর যে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা চালানো হয়েছে তা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। আমি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপারের সুনজর দৃষ্টি কামনা করছি।


একই গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে আব্দুর রাকিব জানান, লম্পট ফটিক ৯ মাস আগে আমার বোনের ৮বছরের শিশু কন্যাকে একই ভাবে ধর্ষন করে। ভয়ভীতির কারনে আমরা এখনো নায্য বিচার পাই নি। আমরা এলাকাবাসি ধর্ষক ফটিকের শাস্তি চাই বলে জানান।


এ ঘটনার পর থেকে ফটিক পালাতক রয়েছে কিন্তু বর্তমানে বিষয়টি ধামাচাপা দিতে ফটিকের আত্মীয়রা ভুক্তভোগি পরিবারকে নানা ভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে বলে জানা যায়।


এদিকে ফটিকের ছেলে আমিনুল বুধবার বারটার দিকে ০১৭৪১ ৫৯ ৫২০৪ নং মুঠো ফোন থেকে এ প্রতিবেদককে সংবাদটি না ছাপানোর জন্য বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দেয় ।
এ বিষয়ে নাচোল থানার ওসি সেলিম রেজার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ভুক্তভোগির পরিবার অভিযোগ দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

আরপি/ এআর

 

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top