রাজশাহী বৃহঃস্পতিবার, ২৮শে জানুয়ারী ২০২১, ১৬ই মাঘ ১৪২৭


বেহাল দশা রাণীনগরের গ্রামীণ রাস্তা


প্রকাশিত:
১৮ ডিসেম্বর ২০২০ ১৫:২৮

আপডেট:
২৮ জানুয়ারী ২০২১ ১১:০৭

বেহাল দশা রাণীনগরের গ্রামীণ রাস্তা

নওগাঁ রাণীনগর উপজেলার কাটরাশইন-গহেলাপুর ইট সোলিং গ্রামীণ রাস্তাটি এখন বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। রাস্তার ইট উঠে গিয়ে মাঝে মাঝে বড় বড় গর্তে ভরপুর হয়ে গেছে। এতে করে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে কয়েক গ্রামের মানুষকে। এদিকে দিন দিন রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। তবুও রাস্তাটি সংস্কারের কোন উদ্যোগ গ্রহন করেনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপকক্ষ। যেন দেখার কেউ নেই।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, জনগনকে দুর্ভোগের হাত থেকে রক্ষা করতে উপজেলার কাটরাশইন বাজার থেকে গহেলাপুর পর্যন্ত মাটির প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তা ২০১৩ সালে ইট সোলিং করা হয়। এদিকে গহেলাপুর যাওয়ার পথ্যেই কিছু রাস্তা পাকা করণও করা হয়েছে। বর্তমানে কাটরাশইন বাজার থেকে পোঁওয়াতাপাড়া গ্রাম এলাকা পর্যন্ত ইট সোলিং রাস্তাটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে। রাস্তার মাঝে মাঝে রাস্তাটির ইট উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে খানা-খন্দে ভরপুর হয়ে গেছে।

বর্তমানে রাস্তাটি যেন মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এই রাস্তা দিয়ে কাটরাশইন, পোঁওয়াতাপাড়া, গহেলাপুরসহ ৪-৫ টি গ্রামের মানুষদের প্রতিনিয়তই চলাচল করতে হয়। চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি একমাত্র পথ হওয়ায় জীবনের ঝুঁকি নিয়েই চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে কয়েক গ্রামের মানুষের। দিন দিন রাস্তাটি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। বর্তমান সরকার যেখানে গ্রামে শহরের সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষে কাজ করছেন সেখানে গ্রামীন এই রাস্তার বেহাল দশার দীর্ঘ সময় পার হলেও তা সংস্কার করার কোন খবর নেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের।

কাটরাশইন গ্রামের মন্টু সিপাই, ইমরান হোসেন, আলামীন, পোঁওয়াতাপাড়া গ্রামের আনোয়ার হোসেন, এরশাদ আলী, ইসমাইল, গহেলাপুর গ্রামের সুবির চন্দ্র, একরামুল হোসেন, রাজ্জাকসহ আরো অনেকেই বলেন, আমরা চরম অবহেলিত এলাকায় বসবাস করি। যার কারণে দীর্ঘ সময় পার হলেও গ্রামীণ এই রাস্তাটি সংস্কার করার কোন উদ্দ্যোগ নেই। অবহেলিত এই রাস্তাটি দিন দিন মরণ ফাঁদে পরিণত হচ্ছে।

বর্তমানে রাস্তার মাঝে মাঝে ইটগুলো উঠে গিয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ছে। স্থানীয় প্রশাসনকে বিষয়টি অনেকবার জানানোর পরও রাস্তাটি এখনোও বেহাল দশায় পড়ে আছে। দ্রুত এই রাস্তাটি সংস্কার করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

ভ্যানচালক আরিফুল ইসলাম, সুমন হোসেনসহ কয়েকজন জানান, কাটরাশইন বাজার থেকে পোঁওয়াতাপাড়া এলাকা পর্যন্ত অনেক কষ্ট করে গাড়ি নিয়ে যেতে হয়। যাত্রী নিয়ে যাওয়াতো দুরের কথা। বর্তমানে রাস্তার যে বেহাল দশা দ্রুত সংস্কার করা না হলে গাড়ি চলাচলের অযোগ্য হয়ে পরবে। দ্রুত রাস্তাটি সংস্কার করার জন্য উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন তারা।

স্থানীয় বড়গাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সফিউল আলম সফু বলেন, রাস্তাটি সংস্কারের জন্য উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। আশা করছি দ্রুত রাস্তাটির সংস্কার কাজ করা হবে।

এ ব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী শাহ মো: শহিদুল হক বলেন, ইট সোলিং রাস্তার সংস্কার কাজ মূলত স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ এবং উপজেলা পরিষদ থেকে করে। তবে রাস্তার যে বেহাল অবস্থার কথা শুনেছি রাস্তাটি পাকা করণের জন্য উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে।

রাণীনগর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফরিদা বেগম বলেন, রাস্তাটি দ্রুত সংস্কার করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

আরপি/এমএএইচ



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top