রাজশাহী মঙ্গলবার, ২৫শে জুন ২০২৪, ১২ই আষাঢ় ১৪৩১


পাবনায় জোরপূর্বক জমি দখলের অভিযোগ


প্রকাশিত:
১০ জুন ২০২১ ০৩:০২

আপডেট:
২৫ জুন ২০২৪ ১৫:৫৯

প্রতীকি ছবি

পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর ইউনিয়নের ভবানীপুর হেলিপোর্ট হাটের উত্তরে বিক্রি করে দেয়া জমি জোরপূর্বক জবর দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, ওই এলাকার মোজাহার মল্লিকের ছেলে শহিদুল ইসলাম কালু, হামিদুল ইসলামসহ আরো কয়েক জনের কাছ থেকে একই এলাকার মোঃ আবু বক্কারের ছেলে আলী আকবর, আলী আকবরের ছেলে মাহাবুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান এবং পাবনার আটুয়ার মৃত আফতাব উদ্দিনের ছেলে রুহুল আমিন ভবানীপুর মৌজার ৪০ ও ৪১ আরএস দাগ এ প্রায় ৪২ শতাংশ জমি ক্রয় করেন।

পরবর্তীতে তারা উক্ত জমি নামজারি করার মাধ্যমে ২০৫০, ২০৫৯ ও ২১৬০ নং খতিয়ান মূলে খাজনা খারিজ পরিশোধ করে আসছেন। কিন্তু জমি বিক্রয়ের পর থেকেই ওই জমির দখল বুঝিয়ে না দিয়ে নানা ছলচাতুরীর আশ্রয় নিয়ে আসছে কালু এবং হামিদুল। বিষয়টি নিয়ে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আলী আকবরদের জমি বুঝিয়ে দিতে বললেও কালু তা বুঝিয়ে না দিয়ে টাল বাহানা করতে থাকে।

গত ০৬ জুন রবিবার আলী আকবর তার ক্রয়কৃত ওই জমিতে ঘর উঠাতে গেলে কালু গংরা বেআইনীভাবে বাঁধা প্রদান করে। বিষয়টি নিয়ে বাকবিতন্ডার এক পর্যায়ে হিমায়েতপুর ফাঁড়ি পুলিশের হস্তক্ষেপে বিষয়টি প্রাথমিকভাবে নিষ্পত্তি হয়। পুলিশ উভয়পক্ষকে কাগজপত্র নিয়ে ফাঁড়িতে দেখা করতে বলে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল্লাহ মন্ডল জানান, আলী আকবর গং শহিদুল ইসলাম কালু গংদের কাছ থেকে বেশ কয়েক বছর পূর্বে জমি কিনলেও তারা দখল পজিশন হস্তান্তর না করে নানান টাল বাহানা করে আসছে। ঘটনার দিন আলী আকবর তার ক্রয়কৃত জমিতে ঘর তুলতে গেলে কালু গং বাধা প্রদান করে। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে সামান্য বাক বিতন্ডার ঘটনা ঘটেছে।

হিমায়েতপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ নাজমুল ইসলাম বলেন, জমিজমা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সামান্য ঝগড়াঝাটির ঘটনা ছাড়া আর কিছু ঘটেনি। তবে এ ঘটনায় কালু বাদী হয়ে পাবনা থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছে। আমরা উভয়পক্ষকে ডেকেছি। কাগজপত্র দেখে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

আরপি/ এসআই



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top