রাজশাহী রবিবার, ২৭শে নভেম্বর ২০২২, ১৩ই অগ্রহায়ণ ১৪২৯


‘COVID-19’ গাড়ি!


প্রকাশিত:
১৮ জুলাই ২০২০ ১৫:০৯

আপডেট:
২৭ নভেম্বর ২০২২ ০৫:২১

‘COVID-19’ গাড়ি। ছবি: সংগৃহীত

করোনা মানুষ থেকে এখন গাড়িতে! কি অবাক হচ্ছেন! হ্য, এরকমই গাড়ির সন্ধান মিলেছে। গাড়িটি এক দিন, দুই দিন নয়, টানা চার মাস ধরে পড়ে রয়েছে পার্কিং জোনে। গাড়ির কোন দাবিদারও নেই। এমন অনেক গাড়িই মাসের পর মাস পার্কিং জোনে পড়ে থাকতে দেখা যায়। তবে এই গাড়ি নিয়ে রহস্যের সৃষ্টির কারণ হচ্ছে এর নম্বর প্লেটের জায়গায় লেখা COVID-19। আর এই লেখার জন্যই ওই গাড়িকে ঘিরে রহস্যর সৃষ্টি হয়েছে।

গাড়িটি পরিত্যক্ত অবস্থায় পার্কিং জোনে পড়েছিল। কাভার দিয়ে ঢাকা ছিল। কয়েকদিন আগে পার্কিং জোনের নিরাপত্তা রক্ষীরা কাভার সরানোর পরই দেখা যায়, সেই গাড়ির নম্বর প্লেটে COVID-19 লেখা।

অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড বিমানবন্দরের পার্কি জোনে ফেব্রুয়ারি থেকেই ছাই রংয়ের বিএমডব্লিউ গাড়িটি পড়ে আছে। সাধারণত বিমানবন্দরের অন্যান্য কর্মীদের গাড়ি যেখানে থাকে এই গাড়িটিও সেখানেই রয়েছে। ওই গাড়ির ছবি তুলে পোস্ট করেন স্টিভেন স্প্রে নামের বিমানবন্দরের এক কর্মী।

তার পর থেকেই সেই নম্বরপ্লেটে লেখা COVID-19 লেখা ছবিটি ভাইরাল হয়ে যায়। পার্কিং জোনে থাকা অনেকে ধারণা করছেন, এই গাড়িটি কোন পাইলটের হতে পাড়ে। তিনি হয়তো অন্য কোন দেশে গিয়ে লকডাউনের কারণে আটকে গিয়েছেন আর এই জন্য হয়তো চার মাস ধরে ফিরতে পারেননি। কিন্তু পার্কিং জোনের দায়িত্বে থাকা রক্ষীদের কাছে তা নিয়ে কোনো তথ্য নেই। অস্ট্রেলিয়ায় প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছিল ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি সময়।

স্প্রে জানিয়েছেন, এত দামি গাড়ি এভাবে কোন বিমান কর্মী ফেলে রাখার সাহস দেখাবেন না।

তিনি আরো বলেন, ওই পার্কিং জোনে কেউ নিজের গাড়ি ৪৮ ঘণ্টার বেশি রাখতে পারেন না। এই বিএমডব্লিউ গাড়ির লাইসেন্স ২০২০ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত রয়েছে। অর্থাৎ উহানে করোনা ছড়ানোর এক মাস আগে সেই গাড়ির লাইসেন্স হয়েছে। অস্ট্রেলিয়ার সরকারি ওয়েবসাইট থেকে বলছে যে, COVID-19 নামে কোন গাড়ির লাইসেন্স তাদের নথিতে অন্তর্ভুক্ত নেই। এই কারণেই এই গাড়ি নিয়ে সৃষ্ট রহস্য বেড়েই চলেছে।

 

আরপি/আআ-০৪



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top