রাজশাহী সোমবার, ৬ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫শে মাঘ ১৪২৯


সাপ্লিমেন্ট ওষুধ খেয়ে গাঢ় নীল হলো গায়ের রং!


প্রকাশিত:
৭ ডিসেম্বর ২০২২ ১৬:০০

আপডেট:
৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২:৪৭

ছবি: সংগৃহীত

কমিক চরিত্র পাপা স্মার্ফকে মনে আছে? তবে সিনেমা বা বইয়ের পাতা নয়, ইনি রক্তমাংসের মানুষ। যা মনে করাবে পাপা স্মার্ফকে। তার নাম পল কারাসন। চেনেন এই ‘নীল মানুষ’-কে?

আমেরিকার বাসিন্দা পল কারাসন। তার সারা শরীরের রং গাঢ় নীল! না, জন্মের পর এমন গায়ের রং ছিলো না তার। ত্বকের রং বদলে গিয়েছে ‘সাপ্লিমেন্ট’ ওষুধ বা পেশিবর্ধক খাবার খাওয়ার পর।

কমিক চরিত্র পাপা স্মার্ফের গায়ের রং ছিলো নীল। পল কারাসনকে তার গায়ের রঙের জন্যই চেনেন আমেরিকার আবালবৃদ্ধবনিতা। তাকে ওই নামেই ডাকতেন সবাই।

বেশ কিছু শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন পল। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়েছিলেন। কিন্তু তারপর ইচ্ছে মতো পেশিবর্ধক খাবার খাওয়া শুরু করেন। আর তাতেই বদলে যায় তার ত্বকের রং! সাপ্লিমেন্টের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় এখন তিনি ‘নীল মানুষ।’

বেশ কিছু সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, পল কারাসন ডার্মাটাইটিসে ভুগছিলেন। ত্বকের সমস্যার সমাধান খুঁজছিলেন তিনি। কিন্তু এর মধ্যে সংক্রমণ ছড়িয়ে যায় সারা শরীরে।

কী করবেন না করবেন ভেবে চিন্তায় পড়েছিলেন পল। ওই সময় সংবাদপত্রে একটি বিজ্ঞাপন চোখে পড়ে তার। সেই বিজ্ঞাপনী প্রচারে ভুল করে বাড়ির কাছের দোকানে যান কারাসন। কিনে ফেলেন একটি ‘সাপ্লিমেন্ট’।

ওই বিজ্ঞাপনের বর্ণনা মেনে রোজকার খাবারের তালিকায় সাপ্লিমেন্টটিকে যোগ করেন পল। প্রথমে অবশ্য কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয়নি। বরং সাপ্লিমেন্ট খেতে খেতে পলের মনে হয়েছিল, তার ত্বকের সমস্যার সমাধান হচ্ছে।

বছরের পর বছর ওই সাপ্লিমেন্ট খেতে থাকেন পল। এর মধ্যে হঠাৎ এক দিন আয়নায় নিজেকে ভালো করে দেখে চমকে উঠলেন তিনি। এটা কী আমি!

প্রথমে নীলচে, ক্রমশ গাঢ় নীল হতে থাকে পলের গায়ের রং। তারপর থেকে তিনি ওই কমিক চরিত্রের মতো গায়ের রং পেয়েছেন!

ত্বক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পল যে সাপ্লিমেন্টটি দিনের পর দিন খাচ্ছিলেন তাতে রুপোর বিশেষ কোনো মিশ্রণ রয়েছে। সিলভারের বিষক্রিয়ার ফলেই ত্বকের এই হাল হয়েছে তার।

পলের গায়ের রং বদলে যাওয়ায় তিনি খবরের শিরোনামে চলে আসেন। কচিকাঁচারা তাকে ‘পাপা স্মার্ফ’ বলে ডাকতে শুরু করে। তাতে অবশ্য খুশিই হতেন পল কারাসন। হাসি ফুটে উঠত ‘নীল মানুষ’টির মুখে। সেই হাসির ভিতরে কি দুঃখ ছিলো? জানা যায়নি। তবে বড়রা যখন ওই নামে ডাকতেন প্রচণ্ড রেগে যেতেন তিনি।

২০০৮ সালে পল একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন। ত্বকের সমস্যার জন্য কেউ যাতে বিজ্ঞাপনী প্রচারে ভুল করে তার মতো কাজ না করেন, এই বার্তা দেন পল। জানান, রুপো শরীরে যাওয়ার পর কী মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে তার।

২০১৩ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় পল কারাসনের। তখন তার বয়স হয়েছিল ৬২ বছর। বিজ্ঞাপন অনুসারে ওষুধ খেলে কী ক্ষতি হতে পারে, তা-ই সবাইকে দেখিয়ে গিয়েছেন এই আমেরিকান।

 

আরপি/এসআর-০২



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top