রাজশাহী বৃহঃস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ই আশ্বিন ১৪২৯


ইউক্রেনের বিরুদ্ধে ১ লাখ সৈন্য পাঠাতে চায় রাশিয়া


প্রকাশিত:
১০ আগস্ট ২০২২ ১৯:০৪

আপডেট:
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২৩:৩৭

ছবি: সংগৃহিত

ইউক্রেনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে রাশিয়ার জয়ে সহায়তা করতে ক্রেমলিনে এক লাখ ‘স্বেচ্ছাসেবী’ সৈন্য পাঠাতে চায় উত্তর কোরিয়া। রাশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

নিউইয়র্ক পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাশিয়ার সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল ওয়ানকে দেশটির সামরিক বিশেষজ্ঞ ইগোর কোরোচেনকো বলেছেন, রাশিয়ায় এসে ইউক্রেনের বিরুদ্ধে চলমান সংঘাতে অংশ নিতে উত্তর কোরিয়ার ১ লাখ ‘স্বেচ্ছাসেবী’ সৈন্য প্রস্তুত রয়েছে।

কোরোচেনকো উত্তর কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর কাউন্টার-ব্যাটারি যুদ্ধের অভিজ্ঞতার প্রশংসা করেছেন বলে মার্কিন এই সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে।

ইউক্রেনকে এক ডজন হাইমারস রকেট ব্যবস্থাপনা সহায়তার মার্কিন সিদ্ধান্তের পর রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর কাছে কার্যকরী কাউন্টার-ব্যাটারি যুদ্ধের গুরুত্ব বেড়েছে। দূরপাল্লার এবং উচ্চ-নিখুঁত নিশানায় আঘাত হানতে সক্ষম এই রকেট ইউক্রেনের যুদ্ধের প্রচেষ্টায় ‘বিশাল পার্থক্য’ গড়ে দিয়েছে বলে গত মাসে ইনসাইডারের সিনেড বেকারকে বলেছিলেন একজন সামরিক বিশেষজ্ঞ।

উত্তর কোরিয়ার সৈন্যদের এবং তাদের কাউন্টার-ব্যাটারি যুদ্ধের দক্ষতাকে স্বাগত জানানো উচিত বলে মন্তব্য করেছেন কোরোচেনকো। তিনি বলেন, উত্তর কোরিয়া ইউক্রেনীয় ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নিজেদের বৈশ্বিক দায়িত্ব পালন করতে চাইলে তাতে আমাদের সায় দেওয়া উচিত।

নিউইয়র্ক-ভিত্তিক কাউন্সিল ফর ফরেইন রিলেশনসের তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের চতুর্থ বৃহত্তম সামরিক বাহিনী রয়েছে উত্তর কোরিয়ার। কোরীয় উপদ্বীপের এই দেশটির প্রায় ১৩ লাখ সক্রিয় সৈন্য রয়েছে। এছাড়া রিজার্ভ সৈন্য হিসেবে কাজ করছে আরও ৬ লাখ।

কিন্তু প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রচুরসংখ্যক সৈন্য থাকলেও পুরোনো সব অস্ত্র আর প্রযুক্তি নিয়ে পিছিয়ে আছে উত্তর কোরিয়া। দক্ষিণ কোরিয়ার সংবাদমাধ্যম ডেইলি এনকে বলেছে, যুদ্ধ-পরবর্তী ইউক্রেন পুনর্গঠনেও রাশিয়াকে কর্মী পাঠিয়ে সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

রাশিয়ার একাধিক সূত্রের বরাত দিয়ে ডেইলি এনকে বলছে, যুদ্ধে রাশিয়া জয়ী হলে ইউক্রেনের পূর্বাঞ্চলের ডনবাসে এক হাজারের বেশি কর্মী পাঠানোর পরিকল্পনা রয়েছে উত্তর কোরিয়ার। উত্তর কোরিয়ার একটি সূত্র ডেইলি এনকে-কে বলেছে, ‘যুদ্ধ এখনও শেষ হয়নি। যে কারণে পিয়ংইয়ংয়ের সরকার মাঠের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে যথাযথ সময়ে কর্মী পাঠানোর এই পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।’

 

আরপি/ এসএইচ ০৫



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top