রাজশাহী মঙ্গলবার, ২৫শে জুন ২০২৪, ১২ই আষাঢ় ১৪৩১


বাঘার সেই মেধাবীরা পেল ডিসির সহায়তা


প্রকাশিত:
৫ জুন ২০২০ ২৩:৪৯

আপডেট:
২৫ জুন ২০২৪ ১৫:৫১

ছবি: মেধাবীদের জেলা প্রশাসক হামিদুল হকের সহায়তা

এবারের এসএসসিতে অদম্য মেধাবীদের নিয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশের পর সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন রাজশাহী জেলা প্রশাসক হামিদুল হক।

বাঘা উপজেলার ৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৪জন মেধাবীদের নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সেটি নজরে আসে রাজশাহীর জেলা প্রশাসকের। পরে বাঘা উপজেলা নির্বাহি অফিসার শাহিন রেজার মাধ্যমে বৃহস্পতিবার তার কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে তাদের প্রত্যেককে ৫ হাজার করে টাকা দিয়ে প্রাথমিকভাবে সহায়তা করেন জেলা প্রশাসক হামিদুল হক।

নানান প্রতিকুলতার মধ্যেও নিজের মেধাকে কাজে লাগিয়ে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে গোল্ডেন এ প্লাস পেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে তারা। শুধু এবারের এসএসসিতেই নয় অষ্টম শ্রেণীতেও গোল্ডেন এ প্লাস  এবং পঞ্চম শ্রেণীতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছিল তারা।

এই মেধাবীরা হলো- উপজেলার বেলগাছি গ্রামের বাসিন্দা দিন মুজুর সাইনাল উদ্দীনের ছেলে, ইসলামী একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়,কারিগরি ও কৃষি কলেজের শিক্ষার্থী অনিক ইসলাম,একই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আব্দুল্লাহ আল মুসা। সে বাঘা পৌর এলাকার মর্শিদপুর গ্রামের দিনমজুর ইনছার আলীর ছেলে। উপজেলার চক এনায়েত গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে,দাদপুর গড়গড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রিশা খাতুন ও উপজেলার চাদপুর গ্রামের দিন মুজুর আমিরুল ইসলামের ছেলে, খানপুর জেপি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সৌরভ।

এদের কেউ কেউ মায়ের হাতের কাজ,হাঁস-মুরগি পালনের টাকা আর প্রাইভেট পড়ায়ে কিংবা সুযোগ বুঝে দিন মজুরের কাজ করে নিজের পড়া লেখার খরচ চালিয়েছে। পণ ছিল যে করেই হোক এস.এস.সিতে ভালো ফল করবেই।তাই ক্ষুধার কষ্ট,আর্থিক অনটন দারিদ্র্যের দৈন্য দমাতে পারেনি ওদের। সবকিছুকে পেছনে ফেলে সামনের দিকে এগিয়ে গেছে তারা। তবে চরম দারিদ্র্যের কারনে নিজেদের ভবিষৎ নিয়ে শঙ্কিত ওরা। এদিকে ভালো ফলাফলের জন্য তাদেরকে অভিনন্দন জানিয়েছেন বাঘা উপজেলা নির্বাহি অফিসার শাহিন রেজা।

আরপি/আআ-০৪



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top