রাজশাহী সোমবার, ২২শে এপ্রিল ২০২৪, ১০ই বৈশাখ ১৪৩১


বিরল রক্ত কাঞ্চনে সেজেছে দেশসেরা রাজশাহী কলেজ


প্রকাশিত:
১ মার্চ ২০২৪ ০০:২৮

আপডেট:
২২ এপ্রিল ২০২৪ ২২:৪৯

ছবি: রাজশাহী পোস্ট

বসন্তের আগমনে মৃতপ্রায় প্রকৃতির জীর্ণতা মুছতে শুরু করেছে সবেমাত্রই। নগ্ন ডালপালাতেও দেখা মিলেছে নতুন পাতার আশীর্বাদ। ফালগুন রুদ্র রূপ ঝেড়ে ফেলে সবুজ গালিচা ভেদ করে মাথা তুলেছে বেগুনি রঙের পাঁপড়ি। তার মাঝেই আবার উঁকিঝুঁকি মারছে বেগুনি পরাগ। মায়াবি রক্ত কাঞ্চনের মোহনীয় ছোঁয়ায় আপন মহিমায় সেজেছে রাজশাহী কলেজের প্রকৃতি। ঋতুর পালাবদলে এবারও বৈচিত্র্যময় ফুলে সেজেছে পুরো ক্যাম্পাস।

সরেজমিনে দেখা যায়, কলেজের ফুলার ভবনের সামনে সবুজ পাতার ক্যানভাসে বেগুনি রক্ত কাঞ্চন ফুটিয়ে প্রকৃতিকে করেছে হাস্যোজ্জ্বল। রঙ আর রূপের বাহার ছড়ানো অপরূপ বর্ণিল সাজের এই ফুল যেন সৌন্দর্যের ডালি সাজিয়ে বসেছে কলেজজুড়েই।

তথ্যমতে, বিরল প্রজাতির রক্ত কাঞ্চন ফুলপ্রেমী সকলের কাছেই এক পরিচিত নাম। দেবকাঞ্চন, শ্বেতকাঞ্চন ও রক্তকাঞ্চন এ ফুলের উল্লেখযোগ্য প্রজাতি। রং, শোভা আর সৌন্দর্যের কারণে রক্ত কাঞ্চনই বেশি জনপ্রিয় সৌন্দর্য পিপাসুদের কাছে। আর তাই কাঞ্চনের মধ্যে রক্ত কাঞ্চনই শীর্ষে পছন্দের তালিকায়।

জানতে চাইলে কলেজের গণিত বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জুনায়েদ আহমেদ বলেন, আমাদের ক্যাম্পাসে প্রায় প্রত্যেক ঋতুতেই কিছু না কিছু ফুল আমাদের মুগ্ধ করে। গ্রীষ্মে রক্ত কাঞ্চন ফুলের আকর্ষণীয় গোলাপি রঙ আর পাঁপড়ির নমনীয়তা ও কোমলতা হৃদয়ে প্রশান্তির দোলা দেয়। অসম্ভব সুন্দর লাগে। রোজ ক্যাম্পাসে এসে রক্ত কাঞ্চন আভায় যেন মুগ্ধ হই।

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ফারিভা আক্তার বলেন, আমাদের ক্যাম্পাসের প্রতিটা ফুল গাছে এখন ধীরে ধীরে ফুল ধরা শুরু করেছে। তার মধ্যে রক্ত কাঞ্চন দেখলেই মন ভরে যায়। সেজন্যই রক্ত কাঞ্চন ফুলটি আমার অনেক পছন্দের। রোজ সকাল বেলায় কলেজে এসে ফুল গাছের নিচে পড়ে থাকা ফুল দেখলেই প্রশান্তি মেলে। অনেকেই এই পড়ে থাকা ফুল কুড়িয়ে বাসায় নিয়ে যায়।



রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা: আব্দুল খালেক বলেন, শিক্ষা বান্ধব পরিবেশের একটি অংশ হলো পরিছন্ন ক্যাম্পাস। শুধু ক্লাসরুম পরিচ্ছন্ন থাকলে হয় না, ক্যাম্পাস ও পরিচ্ছন্ন থাকতে হয়। অনেক শিক্ষার্থী এই রক্ত কাঞ্চন ফুল দেখতে আসে এবং সাথে একটা ছবিও তুলে ফেসবুকে দেয়। এতে যেমন কলেজের পরিচিতি বাড়ে এবং তাদের মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষ এই ফুল সম্পর্কে জানতে পারে।

তিনি আরো বলেন, রাজশাহী কলেজে অনেক প্রজাতির ফুল গাছ রয়েছে। সেগুলোতে এখন ফুল ফুটতে শুরু করেছে। এ ফুলগুলো যেমন শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থীদের মন ভরিয়ে তোলে, পাশাপাশি দর্শনার্থীদেরও মুগ্ধ করে।

 

 

আরপি/এসআর



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top