রাজশাহী মঙ্গলবার, ১৬ই জুলাই ২০২৪, ২রা শ্রাবণ ১৪৩১


সত্যের সন্ধানে এগারো বছরে রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি


প্রকাশিত:
৮ এপ্রিল ২০২২ ২২:৩৭

আপডেট:
১৬ জুলাই ২০২৪ ১১:৩৪

ছবি: আরসিআরইউ

বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা ও অকৃত্রিম পেশাদারিত্ব বজায় রেখে প্রতিষ্ঠার দশ বছর পেরিয়ে ১১তম বর্ষে পদার্পণ করলো ক্যাম্পাস সাংবাদিকদের সংগঠন রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)। সত্য, সংগ্রাম, ঐক্য এবং ঐতিহ্যের বলে বলীয়ান হয়ে হাঁটি হাঁটি পা পা করে এগারো বছরে পদার্পণ করেছে রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)।

২০১২ সালের ৮ এপ্রিল ‘সত্যের সন্ধানে’ শ্লোগানকে সামনে রেখে ১১ জন কার্যকরী সদস্যের হাত ধরে কলেজের কৃষ্ণচূড়া তলায় প্রতিষ্ঠা যাত্রা শুরু করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী সংগঠনটি।

প্রতিষ্ঠালগ্নে নির্দিষ্ট জায়গা ও নিজস্ব কার্যালয়হীন সংগঠনটির কার্যক্রম পরিচালনা হতো গাছ তলা থেকেই। প্রবল ইচ্ছাশক্তি, প্রচন্ড কর্মস্পৃহা, কঠোর সাধনা, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ আর দক্ষ নেতৃত্বের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ক্যাম্পাসের কর্মকর্তা, কর্মচারী, ছাত্র, শিক্ষক থেকে শুরু করে সকলের আস্থা ও বিশ্বাসের মূর্ত প্রতীক হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছে আরসিআরইউ।

ইতিহাস ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক ভারতীয় উপ-মহাদেশের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠে গড়ে উঠা সাংবাদিক সংগঠনটি দীর্ঘ ১০ বছরে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন সমস্যা এবং যৌক্তিক দাবিসমূহ সততা, সাহসিকতা ও নিষ্ঠার সাথে সুশীল সমাজের নিকট তুলে ধরেছে নিরলসভাবে। একইসাথে রাজশাহী কলেজের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের চিত্র ফুটিয়ে তুলে ক্যাম্পাসসহ সমগ্র রাজশাহীবাসীর মনিকোঠায় স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছে।

কিছুদিন আগেও শুধুমাত্র পাবলিক ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাহিরে সাংবাদিকতা বিভাগ না থাকায় সাংবাদিকতা চর্চায় আগ্রহী হলেও কষ্টসাধ্য ছিল অনেকটাই। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজে সাংবাদিকতা করা বা শেখার কোন সুযোগ ছিল না বিন্দুমাত্র। স্বভাবতই কলেজ ক্যাম্পাসগুলোর সংবাদ সংগ্রহ করতেন ক্যাম্পাস সংশ্লিষ্ট শহর বা নগরীর সাংবাদিকরা।

কিন্তু গত এক দশকে সেই অবস্থার ঘটেছে আমূল পরিবর্তন। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত তো বটেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিভিন্ন কলেজেও চর্চা হচ্ছে ক্যাম্পাস সাংবাদিকতার। আর সেই ক্যাম্পাস সাংবাদিকতার চর্চার অন্যতম একটি সংগঠন রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)।

ইতোমধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১৬ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ২৮টি সূচকে টানা তিনবার এবং শিক্ষামন্ত্রণালয়ের অধীনে জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহে ২০১৬ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ১৪টি সূচকে প্রতিবারই সেরার মুকুট অর্জন করেছে রাজশাহী কলেজ। পাশাপাশি পেয়েছে মডেল কলেজের স্বীকৃতিও। যার পেছনে একটি বড় অবদান রয়েছে গণমাধ্যমের। আর এটার পেছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে সংগঠনটি।

প্রতিষ্ঠার অল্প সময়েই বেশ কিছু গণমাধ্যমকর্মী তৈরী করতে সক্ষম হয়েছে সংগঠনটি। যারা তাদের মেধা, শ্রম, কর্মদক্ষতা ও যোগ্যতা দিয়ে স্থানীয়, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমে কাজ করছেন সুনামের সাথে।

এদিকে গৌরবের ১১তম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে ইউনিটির সকল নির্বাহী সদস্য, সদস্য, সহযোগী সদস্য, উপদেষ্টামন্ডলী, কলেজ প্রশাসন, বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন, রাজশাহী কলেজের সকল সহশিক্ষা সংগঠন, শিক্ষার্থী, শুভাকাঙ্খী ও সাংবাদিকবৃন্দকে রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ইউনিটির সভাপতি মাহাবুল ইসলাম।

তিনি বলেন, সফলতার ১০ বছর পেরিয়ে ১১ বছরে পা রাখলো প্রাণপ্রিয় সংগঠন রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)। সবার সহযোগীতায় এই স্বল্প সময়ে অনেক চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে আরসিআরইউ নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছে। যাদের শ্রম, মেধা ও কর্মদক্ষতায় আরসিআরইউ আজকের অবস্থানে এসেছে তাদের সকলের প্রতি জানাচ্ছি কৃতজ্ঞতা।

রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক ইউনিটির সকল নির্বাহী সদস্য, সদস্য, সহযোগী সদস্য, ও উপদেষ্টামন্ডলীকে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, গণমাধ্যম একটি রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা দেশের উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।

রাজশাহী কলেজে লেখাপড়ার পাশাপাশি আজকে যারা শুধু কলেজে না পুরো নগরীর এমনকি জেলার বিভিন্ন বিষয় গণমাধ্যমে স্পষ্টভাবে তুলে ধরছে। ভবিষ্যতে তারা দেশের কল্যাণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

 

 

আরপি/এসআর



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top