রাজশাহী সোমবার, ২২শে এপ্রিল ২০২৪, ১০ই বৈশাখ ১৪৩১

জমি নিয়ে গ্রীণ প্লাজা রিয়েল এস্টেটের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন


প্রকাশিত:
১৭ মার্চ ২০২৪ ০০:৩১

আপডেট:
২২ এপ্রিল ২০২৪ ২১:৩০

ছবি: সংগৃহীত

রিয়েল এস্টেটের বিরুদ্ধে জমি নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। আবু হানিফ নামে এক ব্যক্তি শনিবার দুপুরে রাজশাহী সংবাদিক ইউনিয়নে এ সংবাদ সম্মেলন করেন। গ্রীণ প্লাজা রিয়েল এস্টেটের যে জমিটি নিজের দাবি করছে সেই জমির মালিক আবু হানিফ। তিনি পৈতিক সূত্রে এই জমি পেয়েছেন বলে দাবি করা হয়েছে। সেই জমি নিয়ে গ্রীণ প্লাজা রিয়েল এ্যাস্টেটের স্বত্বাধিকারী মোস্তাফিজ নানা ধরনের কুটকৌশল চালাচ্ছেন বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আবু হানিফ বলেন, গ্রীণ প্লাজা রিয়েল এস্টেটের দাবি করা ওই জমির মালিক আমি। যা পৈতিক সূত্রে পেয়েছি। মোস্তাফিজ তিনি গ্রীণ প্লাজা রিয়েস্টেটের স্বত্বাধিকারী। তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে আমার এবং আমার পরিবারের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলে। উক্ত সম্পর্কের সুযোগে সে আমার ও আমার পরিবারের সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাকে আমার পরিবারকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কুটকৌশল গ্রহণ করে।
তিনি বলেন, আমি গ্রীণ প্লাজা স্বত্বধাকারী মোস্তাফিজের সাথে নন-জিডিশিয়াল স্ট্যাম্পে প্রাথমিক ভাবে আমাদের মধ্যে একটি চুক্তি নামা সম্পাদিত হয়। সরকারী রেজিষ্ট্রি হওয়ার পূর্বে সে আমার তৃতীয় তলা বিশিষ্ট বাড়ি ভেঙ্গে ফেলে আমাকে ও আমার পরিবারের ক্ষতি ও সকল মালামাল নিয়ে যায়।


পরে বিভিন্ন ম্যাধমে জানিতে পারি, বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে জমি নিয়ে আজ অবদি কোন এ্যাপ্টমেন্ট নির্মাণ করে নাই। বর্তমানে সে লোকজন অসহায় জীবন যাপন করছে। তিনি বলেন, চেম্বার অফ কর্মাসে মোস্তাফিজের নামে প্রতারণার একাধিক অভিযোগ জমা হয়েছে। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের কাছে অনেক প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে গ্রীণ প্লাজা রিয়েল এ্যাস্টেটের স্বত্ত্বাধীকারীর বিরুদ্ধে। আমি এসব জানার পর ভীত হয়ে পড়ি। আমি যেহেতু সরকারী বিধি মোতাবেক রেজিষ্টারকৃত কোন দলিল সম্পাদান করি নাই।

আমি অন্য কোম্পানীর সঙ্গে পাবলিক পাটনারশিপ এ্যাক্ট এর ম্যাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করে অবশেষে এসকে এন্ড ট্রাইঙ্গেল কোম্পানির সঙ্গে আমার উক্ত জমিটি দেয়ার জন্য মনস্থির করি। পরবর্তীতে মনস্থির করার কারণে মোস্তাফিজ আমাকে সামাজিক ও আইনগতভাবে হেনস্থা করার জন্য অপচেষ্টা চালায়। আজ অবদি ক্ষতিগ্রস্থ করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি কিছু দিন যাবত দেখছি মোস্তাফিজ কিছু হলুদ সাংবাদিকের ম্যাধমে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করছে।

যার ফলে আমার এবং উক্ত এসকে এন্ড ট্রাইঙ্গেল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক তৌরিদ-আল-মাসুদ (রনি) মান সম্মান ক্ষুন্ন করছে।


তিনি বলেন, সংবাদে প্রকাশ করা হয়েছে যে জমি জালিয়াতি করা হয়েছে। কিন্তু আমার বোধগম্য হচ্ছে না যে আমার জমি আমি কিভাবে জালিয়াতি করেছি। মোস্তাফিজের সাথে আমার আইনগত ভাবে রেজিষ্টাকৃত কোন চুক্তি সম্পাদিত হয়নি। আমি প্রশাসনের কাছে আকুল আবেদন জানাছি এই প্রতারক মোস্তাফিজের হাত থেকে আমাকে ও আমার পারিবারকে উদ্ধার করার জন্য।

তবে যোগাযোগ করা হলে  দাবি করেন, তার নিকট থেকে জমি দেয়ার নাম করে আবু হানিফ টাকা নিয়েছেন। কিন্তু সেই টাকা ফেরৎ না দিয়ে তিনি আরেকজনকে জমিটি দিয়েছেন। এ নিয়ে মামলাও করেছেন আদালতে মোস্তাফিজ।

 

 

আরপি/যেডএফ



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top