রাজশাহী শনিবার, ২রা মার্চ ২০২৪, ২০শে ফাল্গুন ১৪৩০

পুলিশ হেফাজতে বিএনপি নেতার মৃত্যু, ৭ বছর পর মামলার আবেদন


প্রকাশিত:
১৭ নভেম্বর ২০২২ ০৬:৩৭

আপডেট:
২ মার্চ ২০২৪ ১২:১৪

ফাইল ছবি

পুলিশ হেফাজতে আইনুর রহমান মুক্তা নামে এক বিএনপি নেতার মৃত্যুর অভিযোগে রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) সাবেক কমিশনার মো. শামসুদ্দিনসহ ৯ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে আদালতে মামলার আবেদন করা হয়েছে।

বুধবার (১৬ নভেম্বর) দুপুরে মর্জিনা রহমান (৫০) নামের এক নারী তার স্বামীর মৃত্যুর বিচার চেয়ে মহানগর দায়রা জজ আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে এ মামলার আবেদন জমা দেন।

মর্জিনা বেগম রাজশাহী নগরীর বোয়ালিয়া মডেল থানার উপ-শহর এলাকার বাসিন্দা। তার স্বামী আইনুর রহমান মুক্তা ২০১৫ সালের পহেলা জানুয়ারি পুলিশ হেফাজতে মারা যান। ঘটনার সাত বছর পর স্বামীকে নির্যাতনে হত্যার অভিযোগ এনেছেন এ নারী।

মামলার আর্জিতে থাকা অন্যরা হলেন, আরএমপির বোয়ালিয়া থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নূর হোসেন খন্দকার, মহানগর গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) তৎকালীন পরিদর্শক আশিকুর রহমান এবং বোয়ালিয়া থানার তৎকালীন উপ-পরিদর্শক (এসআই) তৌহিদুল ইসলাম। এছাড়াও অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও পাঁচ পুলিশ সদস্যকে আসামি করার আবেদন করা হয়েছে।

আর্জিতে বলা হয়, ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি আইনুর রহমান মুক্তার বিরুদ্ধে বোয়ালিয়া মডেল থানায় একটি মামলা করে পুলিশ। মামলায় ২৭ জানুয়ারি আইনুর রহমান মুক্তাকে উপ-শহর থেকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। সেদিনই তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

কারা কর্তৃপক্ষ গুরুতর আহত আইনুর রহমান মুক্তারকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশ স্বজনদের লাশ হস্তান্তর করলেও দাফন না হওয়া পর্যন্ত তারা পাহারায় ছিল।

বাদীর আইনজীবী মাইনুল আহসান পান্না বলেন, রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতারের পর মর্জিনার স্বামীকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে। তাই হেফাজতে মৃত্যুর আইনে মর্জিনা মামলার আবেদন করেছেন। আদালত আবেদন গ্রহণ করেছেন, কিন্তু কোনো আদেশ দেননি। পরে আদালত এ ব্যাপারে আদেশ দেবেন।

 

 

 

আরপি/এসআর-১২



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top