রাজশাহী সোমবার, ১৭ই জুন ২০২৪, ৩রা আষাঢ় ১৪৩১


বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশে তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছেন শেখ হাসিনা: আসাদ


প্রকাশিত:
৩১ আগস্ট ২০২৩ ০৫:৪২

আপডেট:
১৭ জুন ২০২৪ ০৩:২৬

ছবি: স্মরণ সভা

রাজশাহী জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু বিহীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করেছেন তারই কন্য শেখা হাসিনা।

বুধবার (৩০ আগস্ট) রাজশাহী কাটাখালি পৌরসভার তৃণমূল আওয়ামী লীগের আয়োজনে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, এই কাটাখালিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন ইক্ষু চাষিদের নিয়ে তাদের নায্য দাবিতে সমাবেশ করেছিলো এই কাটাখালির মাটিতেই শেখ হাসিনার উপর গুলি ছোঁড়া হয়েছিল। আওয়ামী লীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী শেখ হাসিনার গাড়ি বহরের সামনে দাঁড়িয়ে সেই ষড়যন্ত্রকারীদের মোকাবেলা করেছিল। আজকের সেই কাটাখালির মাটিতে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার মানুষের সামসে দীপ্ত শপথে উচ্চারণ করতে চাই। যে মুজিব স্বপ্ন দেখেছিল তার দেশের মানুষ নিরক্ষর থাকবে না। যে মুজিব কৃষক শ্রমিকদের দাবি পুরণ করতে চেয়েছিল। শিক্ষা অঙ্গনে বলেছিল উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশপ্রেমিক হতে হবে। বঙ্গবন্ধু যখন সমস্ত কথা একের পর এক বাস্তবায়ন করছিল। জাতিসংঘসহ পৃথিবীর ১৪০ দেশের কাছে স্বাধীনতার স্বকৃতি আদায় করলো। কী জানি কী হলো হঠাৎ এক রাতে ঝড়ে স্বপরিবারে তাকে হত্যা করা হলো।

আরও পড়ুন: মালিকবিহীন ব্যাগে ছিল কোটি টাকার স্বর্ণের বার

তিনি বলেন, হায়ের অভাগা বাঙালি যার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধু দেশ স্বাধীন করলো। তারই কন্যারা দেশে আসতে পারছে না। শত বাধা মিছিল আর গুলিশ শব্দ মাড়িয়েও আমার রাজপথ ছেড়ে যায় নি। এরপর ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা ফিরে আসলো। মুক্তিযোদ্ধের স্বপক্ষের মানুষ একসাথে চলতে শুরু করেছে। এরপর দেশে ফিরে প্রথম সভাতে তিনি বলেছিলেন আমার বাবার স্বপ্ন পরণের করতে তার মত যদি আমাকেও জীবন দিতে হয় তবুও আমি তার দেওয়া কথা পুরণ করবো। শেখ হাসিনা তার কথা রেখেছে। ২১ বার তাকে হত্যা করার চেষ্টা করা হয়েছে। তবুও তাকে দমানো যায় নি।

আসাদ বলেন, শেখ হাসিনার এত উন্নয়নকে যারা টাকা কামনোর মেশিন মনে করেছে সেই জয়গা থেকে তারা ছিকটে পড়বেই পড়বে। মুজিব তোমার বাংলাদেশ তোমার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক মুস্তাক আহমেদ, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা মুক্তার আলী, রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শরিফুল ইসলাম, পালা উপজেলার সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতার আলী, চেয়ারম্যান আব্দুল বারী ভুলু, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাদ আলী, নেতা রাহানুল হক রাহান মিরাজুল আলম কামরান ইয়ামিন,তানোর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন রাজশাহী জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলী আজম সেন্টু, জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি আবুল হোসেন, মুন্ডুমালা পৌরসভার মেয়র সাইদুর রহমান, পারিলা ইউনিয়ন মহিলা লীগের সভাপতি ফাহিমা, রাজশাহী জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আলমগীর হোসেন রঞ্জু কাটাখালী পৌরসভার ওর্য়াড ৪ নং ওয়ার্ড সভাপতি মোঃ মানিক, ৮ নং ওয়ার্ড সভাপতি আওয়ামী লীগ মোহাম্মদ বজলুর রহমান ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহাম্মদ দিলবর ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রহিদুল ইসলাম কালু ৭ নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম নুহু ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া আরো প্রতিটা ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দ এবং রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শফিকুজ্জামান শফিক, রাজশাহী জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক রফিকুজ্জামান রফিক, ঘাসিগ্রাম ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আফজাল হোসেন বকুলসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ যুবলীগ ছাত্রলীগ এবংসকল সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

আরপি/এসআর-২১



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top