রাজশাহী মঙ্গলবার, ১৫ই জুন ২০২১, ২রা আষাঢ় ১৪২৮


পরকিয়া দেখে ফেলায় ছেলেকে হত্যাচেষ্ঠায় মা


প্রকাশিত:
২৯ আগস্ট ২০১৯ ০২:১৯

আপডেট:
২৯ আগস্ট ২০১৯ ০৪:০২

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে এক মায়ের বিরুদ্ধে তার ছেলেকে আপেলের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

বুধবার সকালে উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার রানীপুরা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত মা নূর জাহান ও বোনজামাই আবদুল্লাহকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত নূরজাহান উপজেলার কাঞ্চন পৌরসভার রানীপুরা এলাকার আতিকুর রহমানের স্ত্রী ও বোন জামাই আবদুল্লাহ গাইবান্ধা জেলার সদর থানার ভেরাডাঙ্গা এলাকার ভবেশ বর্মনের ছেলে।

ভোলাবো ফাড়ির ইনচার্জ (এসআই) শফিক আহম্মেদ জানান, আবদুল্লাহ আগে হিন্দু ছিল। তার নাম ছিল সঞ্জয় বর্মণ। সে রূপগঞ্জ উপজেলার পূর্বাচল উপ-শহরের বাণিজ্যমেলার নির্মাণ কাজের শ্রমিক হিসেবে কাজ করে আসছিল।

পরে নূরজাহান বেগমের সঙ্গে সঞ্জয় বর্মণের পরকীয়ার সম্পর্ক গড়ে উঠে। এক পর্যায়ে নূরজাহান বেগম তাকে হিন্দু ধর্ম থেকে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করায়। তার নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় আবদুল্লাহ। পরে ওই সম্পর্ক আরও জোরালো করতে নূরজাহান বেগম তার মেয়ে খাদিজা আক্তারকে আবদুল্লাহর সঙ্গে বিয়ে দেন।

নূরজাহান বেগমের স্বামীর আতিকুর রহমান একজন চা দোকানী। আতিকুর রহমানের অনুপস্থিতিতে নূরজাহান বেগম ও আবদুল্লাহ বিভিন্ন সময় অবৈধ সম্পর্কে লিপ্ত হতো। তাদের এ পরকীয়া সম্পর্ক স্বামী আতিকুর রহমানও টের পেয়ে যায়।

মঙ্গলবার মধ্যরাতে ছেলে সাদিকুল ইসলাম তার মা নূরজাহান বেগম ও বোন জামাই আবদুল্লাহর অবৈধ সম্পর্ক দেখে ফেলে। এর জেরে মা নূরজাহান বেগম ও বোন জামাই আবদুল্লাহ সাদিকুল ইসলামকে আপেলের সঙ্গে বিষ মিশিয়ে খাইয়ে হত্যার চেষ্টা চালায়।

বিষ মিশ্রিত আপেল খেয়ে সাদিকুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাকে স্থানীয় সূফী দায়েমউদ্দিন হাসপাতালে ভর্তি করান। পরে সাদিকুল ইসলামকে বিষ খাইয়ের হত্যার চেষ্টার বিষয়টি নিশ্চিত করেন চিকিৎসক।

ছেলে সাদিকুল ইসলাম কিছুটা সুস্থ হলে তার জবানবন্দিতে মা নূরজাহান বেগম ও বোন জামাই আবদুল্লাহকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে নূরজাহান বেগম ও আব্দুল্লাহ পরকিয়ার সম্পর্ক ও ছেলে সাদিকুল ইসলামকে হত্যাচেষ্টা কথা স্বীকার করেন।

এ ঘটনায় নূরজাহান বেগমের স্বামী আতিকুর রহমান বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃতদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আরপি/এএস



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top