রাজশাহী শনিবার, ২২শে জুন ২০২৪, ৯ই আষাঢ় ১৪৩১


আদিল-এলানের মুক্তি চেয়ে ১০৫ বিশিষ্টজনের বিবৃতি


প্রকাশিত:
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০০:৪৩

আপডেট:
২২ জুন ২০২৪ ১৬:৩০

ফাইল ছবি

মানবাধিকার সংস্থা অধিকারের সম্পাদক আদিলুর রহমান খান শুভ্র ও পরিচালক এ এস এম নাসির উদ্দিনের (এলান) মুক্তি দাবি করে বিবৃতি দিয়েছেন ১০৫ জন লেখক-শিল্পী-সাংবাদিক-শিক্ষক ও অধিকারকর্মী। বিবৃতিতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনের মামলায় আদিল-এলানের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে নাগরিক সমাজ।

সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে ১০৫ লেখক-শিল্পী-সাংবাদিক-শিক্ষক ও অধিকারকর্মীরা জানান, বহু সংগঠন ও নাগরিকের উদাত্ত আহ্বান উপেক্ষা করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত এবং বাতিলকৃত ৫৭ ধারায় আদিলুর রহমান খান ও এ এস এম নাসির উদ্দিন এলানের দুই বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ডের ঘটনায় আমরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।

আরও পড়ুন: আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল, ছাত্রলীগের জেলা সভাপতিকে অব্যাহতি 

তারা বলেন, সঙ্গত কারণেই মানবাধিকার সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় দুই ব্যক্তিকে শাস্তি দেওয়ার নজিরবিহীন এ ঘটনায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে। এ ঘটনায় আমরাও বিক্ষুব্ধ ও বেদনাহত।

বিবৃতিদাতারা আরও বলেন, স্বনামধন্য ও স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান হিসেবে ‘অধিকার’ দীর্ঘদিন ধরে গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডসহ গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘন বিষয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তথ্য প্রকাশ করে আসছে। সরকারের তরফে অধিকারের কণ্ঠরোধের সব পদক্ষেপের পর সংগঠনটির শীর্ষ দুই ব্যক্তির শাস্তি ও কারাবাস তাই অনেক প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। এ ঘটনা দেশে মানবাধিকার চর্চার ক্ষেত্রে তীব্র বাধা তৈরি করবে।

তারা বলেন, আমরা মনে করি, আদিল ও এলানের মামলাসহ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিতর্কিত ও বাতিলকৃত ৫৭ ধারায় চলমান সব মামলা অব্যাহত রাখা কোনোভাবেই সঙ্গত নয়। একই সঙ্গে বাতিলকৃত নিবর্তনমূলক ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতারদের মুক্তি দেওয়া এবং এ আইনে দায়ের করা মামলাগুলো বাতিল করা উচিত।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের আদলে নতুনভাবে গৃহীত সাইবার নিরাপত্তা আইনে সংযুক্ত নিবর্তনমূলক ধারাগুলো বাতিলের দাবি জানানো হয় বিবৃতিতে।

তারা বলেন, আমরা অবিলম্বে আদিলুর রহমান খান এবং এ এস এম নাসির উদ্দিন এলানের মুক্তি দাবি করছি। একই সঙ্গে মানবাধিকার কর্মীদের সুরক্ষা, অবারিত মতপ্রকাশের সুযোগসহ সব গণতান্ত্রিক অধিকার সমুন্নত রাখার দাবি জানাচ্ছি।

আরও পড়ুন: প্রশাসনের পক্ষপাতমূলক আচরণ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: সিইসি

বিবৃতিতে সই করেছেন-
১. শামসুজ্জামান হীরা, কথাসাহিত্যিক ও মুক্তিযোদ্ধা
২. কামাল আহমেদ, সাংবাদিক
৩. রাহমান চৌধুরী, নাট্যকার ও শিক্ষাবিদ
৪. রাণী য়েন য়েন, আদিবাসী অধিকার সুরক্ষাকর্মী ও চাকমা সার্কেলের উপদেষ্টা
৫. ড. সাঈদ ফেরদৌস, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৬. কামাল উদ্দিন সবুজ, সাবেক সভাপতি, জাতীয় প্রেস ক্লাব
৭. ড. হেলাল মহিউদ্দীন, শিক্ষক ও লেখক
৮. আর রাজী, অধ্যাপক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
৯. কাদের গনি চৌধুরী, সাংবাদিক
১০. দিলারা চৌধুরী, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও অধ্যাপক
১১. সৈয়দ আবদাল আহমদ, লেখক ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক, জাতীয় প্রেস ক্লাব
১২. আব্দুল লতিফ মাসুম, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, সাবেক উপাচার্য, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
১৩. ইলিয়াস খান, সাংবাদিক ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক, জাতীয় প্রেস ক্লাব
১৪. মির্জা তাসলিমা সুলতানা, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
১৫. মুহাম্মদ কাইউম, চলচ্চিত্র নির্মাতা
১৬. মোহাম্মদ আজম, লেখক ও অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
১৭. সায়দিয়া গুলরুখ, সাংবাদিক ও গবেষক
১৮. জি এইচ হাবীব, অনুবাদক ও সহকারী অধ্যাপক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
১৯. ওমর তারেক চৌধুরী, লেখক, অনুবাদক
২০. মাহতাব উদ্দিন আহমেদ, লেখক ও গবেষক
২১. ড. মঞ্জুরে খোদা, লেখক, গবেষক
২২. ড. মোশরেকা অদিতি হক, শিক্ষক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
২৩. জাহেদ উর রহমান, শিক্ষক, কলামিস্ট ও এক্টিভিস্ট
২৪. মাহা মির্জা, লেখক ও গবেষক
২৫. রেজাউর রহমান লেনিন, গবেষক ও অধিকার কর্মী
২৬. সাকিব আলি, সাবেক কূটনীতিক
২৭. আবুল কালাম আল আজাদ, সমন্বয়ক, ব্রহ্মপুত্র সুরক্ষা আন্দোলন
২৮. সায়ন্থ সাখাওয়াৎ, লেখক ও চিকিৎসক
২৯. রাখাল রাহা, লেখক
৩০. সাখাওয়াত টিপু, কবি
৩১. ফাহমিদুল হক, ভিজিটিং অধ্যাপক, বার্ড কলেজ, যুক্তরাষ্ট্র
৩২. ফারজানা ওয়াহিদ সায়ান, সঙ্গীতশিল্পী
৩৩. সুস্মিতা চক্রবর্তী, অধ্যাপক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
৩৪. লতিফুল ইসলাম শিবলী, গীতিকার
৩৫. জিয়া হাশান, কথাসাহিত্যিক
৩৬. সায়েমা খাতুন, লেখক ও নৃবিজ্ঞানী
৩৭. খসরু চৌধুরী, লেখক, বাঘ বিশেষজ্ঞ
৩৮. রায়হান রাইন, লেখক ও গবেষক, শিক্ষক জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৩৯. আব্দুল হালিম চঞ্চল, চিত্রশিল্পী ও শিক্ষক
৪০. মুস্তাফা জামান, চিত্র সমালোচক ও শিল্পী
৪১. হামীম কামরুল হক, কথাসাহিত্যিক
৪২. মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, লেখক ও প্রকাশক
৪৩. সাঈদ বারী, প্রকাশক
৪৪. চঞ্চল আশরাফ, কবি
৪৫. আহমেদ স্বপন মাহমুদ, কবি ও প্রাবন্ধিক
৪৬. মাহবুব হাসান, কবি
৪৭. ফিরোজ আহমেদ, প্রবন্ধকার
৪৮. লুনা রুশদী, লেখক ও অনুবাদক
৪৯. ফাহাম আব্দুস সালাম, লেখক
৫০. শওকত হোসেন, কবি ও সম্পাদক, হালখাতা
৫১. মাহবুব মোর্শেদ, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক
৫২. বাকী বিল্লাহ, লেখক ও রাজনৈতিক কর্মী
৫৩. মারুফ মল্লিক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও লেখক
৫৪. জিয়া হাসান, লেখক
৫৫. ফেরদৌস আরা রুমী, কবি ও উন্নয়নকর্মী
৫৬. অমল আকাশ, শিল্পী ও সংগঠক
৫৭. বীথি ঘোষ, সাংস্কৃতিক কর্মী
৫৮. গাজী তানজিয়া, সাহিত্যিক
৫৯. দিলশানা পারুল, নারী অধিকার কর্মী
৬০. ওলিউর সান, লেখক ও সংগঠক
৬১. মাহাবুব রাহমান, কবি ও প্রকাশক
৬২. ফয়েজ আহমদ তৈয়্যব, টেকসই উন্নয়ন বিষয়ক লেখক
৬৩. সালেহ হাসান নকিব, অধ্যাপক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
৬৪. শরৎ চৌধুরী, শিক্ষক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়
৬৫. নুরুল আমিন বেপারী, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী, অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৬৬. ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম, অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৬৭. ড. ছিদ্দিকুর রহমান খান, অধ্যাপক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৬৮. ড. শামসুল আলম সেলিম, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৬৯. ড. কামরুল আহসান, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৭০. ড. লুৎফর রহমান, অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
৭১. ড. মোস্তফা নাজমুল মানছুর, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৭২. কামরুন্নেসা খন্দকার, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৭৩. মো. জামাল উদ্দিন, অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৭৪. নসরুল কাদির, অধ্যাপক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
৭৫. মাইনুল হাসান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক, ডিআরইউ
৭৬. জামাল আবেদীন ভাস্কর, লেখক ও ব্লগার
৭৭. ড. ইফতিখারুল আলম মাসুদ, অধ্যাপক, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
৭৮. সাঈদ খান, সাংগঠনিক সম্পাদক, ডিইউজে
৭৯. ড. হাসান আশরাফ, সহযোগী অধ্যাপক, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়
৮০. ড. জাহেদ আরমান, অ্যাসিস্টেন্ট প্রফেসর, ফ্রামিংহাম স্টেট ইউনিভার্সিটি, যুক্তরাষ্ট্র
৮১. এনায়েত রসুল, শিশুসাহিত্যিক ও সাংবাদিক
৮২. আসিফ সিবগাত ভূঞা, লেখক
৮৩. দিলরুবা শরমিন, আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী
৮৪. সুলতান মোহাম্মদ জাকারিয়া, বিশেষজ্ঞ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, ইউএসএ
৮৫. মুসা আল হাফিজ, কবি ও গবেষক
৮৬. কদরুদ্দীন শিশির, ফ্যাক্টচেক এডিটর, এএফপি
৮৭. মারজিয়া প্রভা, লেখক ও একটিভিস্ট
৮৮. সাইদা আখতার, সাধারণ সম্পাদক, নারীগ্রন্থ প্রবর্তনা
৮৯. রেজোয়ান সিদ্দিকী, সাংবাদিক ও লেখক
৯০. শামীমা জামান, কথাসাহিত্যিক
৯১. হাসান আল মামুন, সাবেক আহবায়ক, কোটা সংস্কার আন্দোলন
৯২. সালাহ উদ্দিন শুভ্র, কথাসাহিত্যিক ও সাংবাদিক
৯৩. মাসুদ কবির, চিত্রশিল্পী
৯৪. বায়েজিদ বোস্তামী, কবি ও গদ্যকার
৯৫. পারভেজ আলম, লেখক ও এক্টিভিস্ট
৯৬. রোজীনা বেগম, গবেষক ও মানবাধিকার কৰ্মী
৯৭. নুসরাত জাহান, সাংস্কৃতিক কর্মী ও অ্যাক্টিভিস্ট
৯৮. রেবেকা নীলা, সাংস্কৃতিক কর্মী
৯৯. এহসান মাহমুদ, লেখক ও সাংবাদিক
১০০
. দীপক রায়, প্রকাশক ও রাজনৈতিক কর্মী
১০১. সোহেল রানা, লেখক ও আন্তর্জাতিক বিশ্লেষক
১০২. অর্বাক আদিত্য, কবি
১০৩. নাদিম হাসান, নাট্যকর্মী ও অ্যাক্টিভিস্ট
১০৪. আরিফুল ইসলাম আদীব, অ্যাক্টিভিস্ট ও সাংবাদিক
১০৫. ড. মোহাম্মাদ আল আমিন, অধ্যাপক, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

এর আগে গত শুক্রবার (১৫ সেপ্টেম্বর) পৃথক বিবৃতিতে আদিল-এলানের মুক্তি দাবি করেন ৪৮ জন বিশিষ্ট নাগরিক। ওই বিবৃতিতে তাদের দুই বছরের কারাদণ্ড এবং ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়ে কারাগারে পাঠানোর ঘটনায় উদ্বেগ জানানো হয়।

গত বৃহস্পতিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) আইনের ৫৭ ধারার মামলায় আদিলুর রহমান খান ও এ এস এম নাসির উদ্দিনকে দুই বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। একই সঙ্গে তাদের ১০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড করা হয়। ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ এম জুলফিকার হায়াত এ রায় দেন।

 

 

আরপি/এসআর-১১



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top