রাজশাহী শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর ২০২০, ১৫ই কার্তিক ১৪২৭


ধামইরহাটে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে র‌্যালী


প্রকাশিত:
১৭ অক্টোবর ২০২০ ২০:৫৭

আপডেট:
৩০ অক্টোবর ২০২০ ০৪:২৫

 ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে র‌্যালী। ছবি: সংবাদদাতা

নওগাঁর ধামইরহাটে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে ধামইরহাটে ১নং বিট পৌরসভা পুলিশিং এলাকায় ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) নওগাঁর ধামইরহাট উপজেলাই থানা পুলিশের আয়োজনে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। 

এ সমাবেশে সংশ্লিষ্ট বিট এলাকার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নারী, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, মসজিদের ইমামসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করবেন।

এ সময় থানা ভবনের মুল গেটের সামনে থেকে সকাল ১০টায় একটি র‌্যালি বের হয়ে আমাইতাড়া ১নং বিট পৌরসভা পুলিশিং এলাকায় গিয়ে শেষ হয়ে একটি আলোচনা সভার আয়েজন করা হয়।

এ সময় অফিসার ইনচার্জ মো. আবদুল মমিন’র সভাপতিত্বে কাউন্সিলর ও পৌর অ,মীলীগ সম্পাদক মুক্তাদরিুল হক মুক্তা’র সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আ,মীলীগ সভাপতি মো. দেলদার হোসেন, বিশেষ অতিথি উপজেলা আ,মীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদুল ইসলাম।

এছারাও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছাবিনা এক্কা, সাব ইন্সúেক্টর মো. মহসিন অলী, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. অফিল উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা আল ফারুক, ইলিয়াস, ইদ্রিস আলী, উপজেলা আ,মীলীগ সভানেত্রী অঞ্জুয়ারা বেগম, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আবু সুফিয়ান, আলহাজ্ব মাও. মো.মের্শেদুল আলম, জগদল আদিবাসী স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষার্থী যোতি হেমরম, জেলা স্পেশাল ব্রাঞ্চ মো. নাসিম, স্থানীয় সাংবাদিকসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী এ সমাবেশে অংশগ্রহণ করেন।

এ সময় প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে এগিয়ে আসার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি মাদকের ভয়াবহতা ও কুফল সম্পর্কে মতবিনিময় এবং মাদক নির্মূলের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন।

সমাবেশে অংশগ্রহণকারীরা ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন বিরোধী পোস্টার, লিফলেট, প্ল্যাকার্ড প্রদর্শনের মাধ্যমে জনসাধারণকে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান এবং এ ধরনের ঘৃণ্য অপরাধের বিরুদ্ধে জনসচেতনের বিকল্প নেই বলে মত প্রকাশ করেন।

ওসি মো. আবদুল মমিন বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ দেশের সামাজিক শৃঙ্খলা এবং জনগণের শান্তি ও নিরাপত্তা প্রদানের লক্ষে ধর্ষণ, নারী ও শিশু নির্যাতনের প্রতিটি ঘটনায় অপরাধীকে আইনের আওতায় আনার লক্ষ্যে পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছে।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ দেশের সেবা ও জনগণের কল্যাণে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে সর্বদা সর্বতোভাবে জনগণের পাশে রয়েছে।

 

আরপি/আআ




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top