রাজশাহী শুক্রবার, ১৪ই মে ২০২১, ১লা জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮


মহাদেবপুর ইউপি’র ওয়েবসাইটে নেই প্রকল্পের তথ্য, স্বচ্ছতা প্রশ্নবিদ্ধ


প্রকাশিত:
১ মে ২০২১ ২২:০৪

আপডেট:
১ মে ২০২১ ২২:১১

ছবি প্রতিনিধি

ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যে প্রতিটি সরকারি অফিসের জন্য তৈরি করা হয়েছিলো ওয়েবসাইট। উদ্দেশ্য ছিলো সরকারি সব কার্যক্রম সম্পর্কে সার্বক্ষণিক হালনাগাদ থাকা ও জনসাধারণকে কাঙ্খিত তথ্য দেওয়া। অথচ নওগাঁর মহাদেবপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ওয়েবসাইটে বাজেটসহ উন্নয়ন প্রকল্পের কোনো তথ্যই হালনাগাদ করা হচ্ছে না বছরের পর বছর। ফলে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা প্রশ্নবিদ্ধ! তথ্যের অবাধ প্রবাহ না থাকায় দুর্নীতির অবারিত সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল।

সর্বশেষ তথ্য সংযোজন না থাকায় জনসাধারণ এবং গণমাধ্যমকর্মীদের পড়তে হচ্ছে বিভ্রান্তিতে। নাগরিকরা সঠিক তথ্যের পরিবর্তে পাচ্ছে ভুল তথ্য। ডিজিটাল ব্যবস্থা নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা। এতে পূর্ণতা পাচ্ছে না ডিজিটাল বাংলাদেশ।

মহাদেবপুর সদর ইউপি’র ওয়েবসাইটে “প্রকল্পসমূহ” ক্যাটাগরিতে প্রবেশ করে দেখা যায়, ২০১৭-২০১৮ অর্থ বছরের কাবিখা, কাবিটা, টিআর, জিআর, এলজিএসপি ও এলজিইডির প্রকল্পের তথ্য সন্নিবেশন করা। এসব প্রকল্পের আওতায় বর্তমানে কোথায় কি হচ্ছে- এর কোন তথ্য নেই। ফলে বাস্তবতার সাথে মিলছে না ওয়েবসাইটে দেয়া তথ্য। অপরদিকে উপজেলার অন্যান্য ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন সরকারি ওয়েবসাইটও নিয়মিত আপডেট (হালনাগাদ) করা হচ্ছে না।

সচেতন মহলের অভিযোগ, তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ অনুযায়ী যে তথ্যগুলো স্বপ্রণোদিত হয়ে প্রকাশ করার কথা, সেগুলোও ওয়েবসাইটে নেই। ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম, গুরুত্বপূর্ণ নোটিশসহ বিভিন্ন সভার কার্যবিবরণী, উন্নয়ন প্রকল্পের তথ্য এবং সুবিধাভোগীদের তালিকা নেই। এছাড়া বাজেট, আয়-ব্যয় ও উন্নয়ন প্রকল্পের তালিকা না থাকায় সাধারণ মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে তথ্যপ্রাপ্তির ন্যায্য অধিকার থেকে। ফলে মাঠপর্যায়ে দুর্নীতি ও প্রকল্পের অর্থ লুটপাট বাড়ছে। ওয়েবসাইটে সকল তথ্য সংযোজনের দাবি জানিয়েছে সচেতন মহল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক সরকারি কর্মকর্তা বলেন, দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ার জন্য ডিজিটাল পদ্ধতির কোনো বিকল্প নেই। তবে এর জন্য অনেক চ্যালেঞ্জ রয়েছে। কারণ, এটি কার্যকর হলে প্রকল্পের কোটি কোটি টাকা লোপাট হবে না এবং ফাইল গায়েব করা যাবে না। ফলে এটি ঠেকানোর জন্য একটি চক্র তৈরি হয়েছে, সে জন্য তারা কাজ করছে।

উপজেলা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের সহকারী প্রোগ্রামার শাহীন আরা রুমী বলেন, ‘সকল দফতরকে নিজ নিজ ওয়েবসাইট হালনাগাদ কারার জন্য সম্প্রতি চিঠি দেওয়া হয়েছে।’

জানতে চাইলে মহাদেবপুর সদর ইউপি’র সচিব গোলাম রাব্বানী মল্লিক বলেন, ‘মহাদেবপুর উপজেলার সকল ইউনিয়ন পরিষদের ওয়েবসাইটের একই অবস্থা। বর্তমানে ইউনিয়ন পরিষদের কাজ অনেক বেড়ে গেছে। ব্যাপক কাজের চাপ থাকায় ওয়েবসাইট হালনাগাদ করা সম্ভব হচ্ছে না।’

এ ব্যাপারে মহাদেবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মিজানুর রহমান মিলন বলেন, প্রত্যেক ওয়েবসাইট আপডেটের দায়িত্ব স্ব-স্ব দফতরের। সংশ্লিষ্টদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা করানো হয়েছিলো। ওয়েবসাইটে প্রকল্প সংক্রান্ত তথ্যসহ সকল তথ্য হালনাগাদ করার জন্য প্রতিটি দফতরে চিঠিও দেওয়া হয়েছে। আশা করি দ্রুত এটি সমাধান হয়ে যাবে।

আরপি/ এসআই



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top