রাজশাহী বুধবার, ৭ই জুন ২০২৩, ২৪শে জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০


২৪ ঘণ্টায় রামেকে অপরিবর্তিত মৃত্যুর সংখ্যা


প্রকাশিত:
২৫ আগস্ট ২০২১ ১১:৪৬

আপডেট:
৭ জুন ২০২৩ ০১:৫০

ছবি: রামেক করোনা ইউনিট

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আজও ৯ জন মারা গেছেন। এদের মধ্যে চারজন করোনায় এবং পাঁচজন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। সোমবার (২৩ আগস্ট) সকাল ৯টা থেকে মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) সকাল ৯টার মধ্যে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে নাটোরের দুজন, রাজশাহীর একজন এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন প্রাণ হারিয়েছেন। এ ছাড়া করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে রাজশাহীর দুজন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের একজন, নাটোরের একজন এবং পাবনার একজন মারা গেছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের মরদেহ দাফনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ চারজন মারা গেছেন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যাকেন্দ্রে (আইসিইউ)। এ ছাড়া ৩ নম্বর ওয়ার্ডে ২ জন এবং ১৪, ২২ ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে একজন করে মারা গেছেন।

পরিচালক আরও জানান, মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ৫১৩ শয্যার রামেক করোনা আইসোলেশন ইউনিটে রোগী ভর্তি ছিলেন ২২১ জন। এক দিন আগেও এই সংখ্যা ছিল ২৩৮ জন।

বর্তমানে রাজশাহীর ১০২ জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৩৬ জন, নাটোরের ২৬ জন, নওগাঁর ২৬ জন, পাবনার ২০ জন, কুষ্টিয়ার ৯ জন, জয়পুরহাটের তিনজন, সিরাজগঞ্জের একজন এবং মেহেরপুরের দুজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন।

হাসপাতালে করোনা নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ১০৮ জন। করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন ৮৩ জন। করোনা ধরা পড়েনি ভর্তি ৩০ জনের। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ২৪ জন। এই এক দিনে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৩৩ জন।

এর আগে মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতাল ল্যাবে ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এর মধ্যে করোনা ধরা পড়েছে ১৪ জনের নমুনায়। একই দিনে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে আরও ১৮৫ জনের। এর মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৭ জনের। পরীক্ষার অনুপাতে রাজশাহীর ১৭ দশমিক ৩১ শতাংশ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১৪ দশমিক ১৭ শতাংশ নমুনায় করোনা ধরা পড়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ১ আগস্ট থেকে ২৪ আগস্ট পর্যন্ত রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে মারা গেছেন ৩১৩ জন। এর মধ্যে করোনায় ১৩৫ জন, করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে ১৪৭ জন এবং করোনা নেগেটিভ সত্ত্বেও অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় ৩০ জনের মৃত্যু হয়।

এর আগে গত বছরের এপ্রিল থেকে এই বছরের জুলাই পর্যন্ত রামেক হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৯ হাজার ৩৯ জন রোগী। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গেছেন ২ হাজার ৫১১ জন। এই ১৫ মাসে মারা গেছেন ১ হাজার ৬০৯ জন। এর মধ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৫২৬ জনের। অন্যদের মৃত্যু হয়েছে উপসর্গ নয়তো অন্যান্য শারীরিক জটিলতায়।

 

 

আরপি/এসআর



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top