রাজশাহী শুক্রবার, ২রা ডিসেম্বর ২০২২, ১৯শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯


রিজার্ভ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই: অর্থমন্ত্রী


প্রকাশিত:
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৮:২৬

আপডেট:
২ ডিসেম্বর ২০২২ ১১:৩৩

সংগৃহিত

গত কয়েক মাস ধরে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ কমতে থাকায় উদ্বেগ দেখা দেয়। তবে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, আগের চেয়ে পরিস্থিতি ভালো। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ আবার বাড়তে শুরু করেছে।

বুধবার (১৪ সেপ্টেম্বর) ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এই কথা বলেন। বৈঠকে মন্ত্রী সভাপতিত্ব করেন।

দেশে রিজার্ভ কমছে এধারা কি অব্যাহত থাকবে কি না জানতে চাইলে মুস্তফা কামাল বলেন, আমাদের ফরেন রিজার্ভ কমছে। প্রতি বছরে আমাদের কতেটা পেমেন্ট লাগে? আমাদের অবস্থান আগের চেয়ে ভালো। আমাদের এক্সপোর্ট বাড়ছে, ইম্পোর্ট কমছে। পাশাপাশি রেমিট্যান্সটা অনেক দ্রুত বাড়ছে। আমরা এক বছরে রেমিট্যান্স অর্জন করেছিলাম ২৪ বিলিয়ন ডলার, মাসে দুই বিলয়ন ডলার করে। এখন কিন্তু মাসে দুই বিলিয়নের উপর চলে গেছে। আমাদের এই ডলারের জন্য কাউকে পেমেন্ট করতে হচ্ছে না। পেমেন্ট করতে হচ্ছে লোকাল যারা রেমিটেন্স পাঠাচ্ছে, এখানে কোনো ডলার এক্সচেঞ্জ হয় না। আমরা মনে করি আমরা যে পরিমাণ রেমিট্যান্সের মাধ্যমে ডলার পাচ্ছি তাহলে যেভাবে ৪৮ বিলিয়ন ডলার অর্জন করেছিলাম, সেখানে আমাদের যেতে বেশি দিন সময় লাগবে না।

মন্ত্রী বলেন, এক দেশের মুদ্রা আরেক দেশে গ্রহণ করতে হলে আন্তর্জাতিক মুদ্রা বিশেষ করে ডলার ব্যবহার করতে হয়। আমাদের যেটা করতে হবে কারেন্সি কিছু অফ করে রাশিয়াকে একসেপ্ট করাতে হবে। তারা সেটি গ্রহণ করলে আমরা সেটি কাজে লাগাতে পারব।

সুদের হার বাড়িয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ কঠিন বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বলেন, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের জন্য আমাদের ফিসকাল ও মনিটরিং এই দুটিকে অ্যাপ্লাই করে সেই কাজটি করি, বাংলাদেশ ব্যাংক সেই কাজটি করে।

বিশ্বের সব দেশে ব্যাংক ঋণে সুদের হার বাড়াচ্ছে সে বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের ৯/৬ পারসেন্ট ইন্টারেস্ট রেট যেভাবে কার্যকর করেছি, এটা ভালোভাবেই চলছে। আমাদের মতো দেশে ইন্টারেস্ট রেট বাড়িয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ কঠিন কাজ। ইন্টারেস্ট রেট নির্ভর করে ডিমান্ড ও সাপ্লাইয়ের ওপর। আমরা আস্তে আস্তে মার্কেট বেইজ লেনদেনে যাবো। এতদিন যেভাবে প্রাইজ ঠিক করে দিতাম সেভাবেই যাবো। আমরা অ্যাডভান্স ইকোনমির দেশগুলো যেভাবে কারেন্সিকে ডিল করে সেভাবে আমরা চিন্তা করব। তারা যেভাবে ঠিক করে দেয় সেভাবে ঠিক করে দেবো।

আরপি/ এসএইচ ০৪

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top