রাজশাহী শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৪ই ফাল্গুন ১৪২৭

এবার সেই ছাত্রলীগ নেতার মাদক সেবনের ছবি ভাইরাল


প্রকাশিত:
২৬ জানুয়ারী ২০২১ ১৭:৪১

আপডেট:
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ০৩:৫৩

ছবি: সংগৃহীত

চাকুরী দেয়ার নামে টাকা আত্মসাৎ, ছিনতাই ও চাঁদাবাজির অভিযোগে অভিযুক্ত রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক। এবার সেই আতিকের মাদক সেবনের ছবি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে। এ নিয়ে চলছে নানা সমালোচনা।

ছবিতে দেখা যায়, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক ফেন্সিডিল খাচ্ছেন। উপজেলা যুবলীগের ক্রীড়া সম্পাদক আল-আমিন হোসেন তার ফেসবুকে আতিকের মাদক সেবনের ছবি পোস্ট করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। পোস্টে ছাত্রলীগ নেতা আতিকের বিরুদ্ধে মাদক সেবন, মাদক ব্যবসা, চুরি ছিনতাই ও নারী কেলেংকারিসহ নানা অভিযোগ তুলে ধরেছেন তিনি।

জানা গেছে, উপজেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক দলীয় পদ পাওয়ার পর বেপরোয়া হয়ে ওঠেন। দলীয় পদ ভাঙিয়ে চাকুরী দেয়ার নামে টাকা আত্মসাৎ, ছিনতাই ও চাঁদাবাজির মতো তার বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে একাধিক ছিনতাই, চাঁদাবাজির ও প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার মামলা রয়েছে। এসব ঘটনা নিয়ে গত ৭ জানুয়ারি ভুক্তভোগীরা সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলন থেকে জানা যায়, ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কম্পিউটার অপারেটর পদে সার্কুলার হয়। সার্কুলারে আরিফুল নামের এক যুবককে চাকুরী পাইয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় আতিক এবং ৫০ হাজার টাকা নেয়। এরপর আরিফুলকে নিয়ে ঢাকায় যান আতিক। ঢাকায় তিনদিন যাবত বিভিন্ন অলিতে গলিতে ঘুরিয়ে ভুলভাল বুঝিয়ে বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন। তারপর থেকে দীর্ঘ এক বছর চাকুরি হবে হচ্ছে বলে দিন পার করতে থাকেন। এক বছর পর পুণরায় টাকা দাবি করেন আতিক। টাকা না দিলে চাকুরীও হবেনা আবার আগের টাকাও ফেরত দিবে না বলে জানায় সে।

ওই সংবাদ সম্মেলনে পানানগর গ্রামের মুকুল হোসেন নামের আরেক ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, দীর্ঘ ৫ বছর যাবত সরকারি খাস পুকুরের শর্ত মেনে লীজ নিয়ে মাছ চাষ করছেন তিনি। কিন্তু গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে হঠাৎ করেই আতিক তার পুকুরে উপস্থিত হন। পুকুরের চারপাশে নেটজাল দিয়ে বেড়া দিয়ে আসেন। এব্যাপারে আতিকের সাথে যোগাযোগ করলে আতিক তার কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। পরে তাকে ১০ হাজার টাকা দেন মুকুল।কিন্তু তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে আতিক তার বিরুদ্ধে স্থানীয় কিছু মানুষকে দিয়ে তাকে ভয়ভীতি ও হুমকি দিতে থাকে। এমনকি আতিককে টাকা না দেয়ায় পুকুরের মাছ ধরতেও মুকুলকে বাধা দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়।

উপজেলা যুবলীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আল-আমিন সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক তার কাছ থেকে গত বছরের ২৯ ফেব্রুয়ারি তাকে বেধড়ক মারপিট করে নগদ ২ লাখ ১৪ হাজার টাকা, ২টা মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নেয়। ওই ঘটনায় সে আতিকসহ তিন জনকে আসামী করে রাজশাহীর আদালতে মামলাও দায়ের করেন তিনি। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন আছে। মামলা তুলে নিতে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন আলামিন।

 

 

আরপি/এসআর-০৬



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top