রাজশাহী সোমবার, ৩০শে নভেম্বর ২০২০, ১৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭


মহসিনকে গ্রেফতারে স্ত্রী সহায়তা করেন র‌্যাবকে


প্রকাশিত:
১৯ নভেম্বর ২০২০ ০৩:৩৬

আপডেট:
৩০ নভেম্বর ২০২০ ১৯:৪৪

ছবি: সংগৃহিত

ফেসবুক লাইভে সাকিব আল হাসানকে হত্যার হুমকিদাতা মহসিন তালুকদারকে মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বেলা ১১টার দিকে সুনামগঞ্জ জেলার রানসি গ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। তাকে গ্রেফতারে র‌্যাবকে সর্বাত্মক সহায়তা করেছে তার স্ত্রী।
ফেসবুকে সাকিবকে হুমকি দেওয়ার পর সিলেট থেকে সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের রনসি গ্রামের ভায়রার বাড়িতে লুকিয়ে ছিল মহসিন। পরে র‍্যাব-৯ এর একটি টিম তাকে গ্রেফতার করে।


র‌্যাব-৯ এর জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আবদুল্লাহ রাসেল সংবাদমাধ্যমকে বলেন, মহসিনের পালিয়ে এসে লুকিয়ে থাকার খবর পেয়ে সোমবার (১৬ নভেম্বর) রাতেই তিনটি ইউনিট জেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায়। এমনকি সুনামগঞ্জে থাকা তার আত্মীয়দের বাড়িতেও অভিযান চালায় র‍্যাব।


তিনি আরও বলেন, মহসিনকে ধরতে সিলেট থেকে তার স্ত্রী ও ওই এলাকার ইউপি চেয়ারম্যানকে সুনামগঞ্জে নিয়ে আসা হয়। তাকে ধরতে তার স্ত্রীও সাহায্য করেন। পরদিন মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) সকালে স্ত্রীর সঙ্গে মোবাইলে কথা বলেন মহসিন। সেই মোবাইলের সূত্র ধরে মহসিনের অবস্থান নির্ণয় করে র‍্যাব। তারপর তাকে রনসি গ্রামের ওই বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের পর তাকে র‍্যাব কার্যলয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।


সিলেট সদর উপজেলার শাহপুর তালুকদারপাড়া গ্রামের আজাদ বক্স তালুকদারের ছেলে মহসিন তালুকদার। তিনি এক সময় ব্যবসা করতেন কিন্তু করোনা শুরুর পরে তিনি বেকার ছিলেন।


এদিকে, সাকিব আল হাসানের কলকাতায় মন্দিরে যাওয়া এবং এক ভক্তের ফোন ভাঙা নিয়ে মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখা দেওয়ায় সোমবার (১৬ নভেম্বর) নিজের ইউটিউব চ্যানেলে ৭ মিনিট ৫৩ সেকেন্ডের একটি ভিডিও প্রকাশ করেন সাকিব। সেখানে তিনি ভক্তদের প্রতিক্রিয়ার বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলেন।


প্রসঙ্গত, সম্প্রতি কলকাতায় গিয়ে কালীপূজার এক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন সাকিব। এতে বিক্ষুব্ধ হয়ে সাকিবকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি দেন মহসিন। এ সময় অকথ্য ভাষায় সাকিবকে গালিগালাজও করতে থাকেন তিনি।


বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে প্রেস কনফারেন্স করে ক্ষমা চাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সেই হত্যার হুমকিদাতা মোহসিন তালুকদার।

সাকিবকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘তুমি আমাদের দেশের গৌরব, কিন্তু তুমি মানুষের মনে আঘাত দিয়েছো। বিশেষ করে মুসলমানদের মনে আঘাত দিয়েছো। তোমার জন্য দোয়া করেছি আল্লাহ তোমাকে হেদায়াত দান করুন। আর তুমি দেশে এসে প্রেস কনফারেন্স করে ক্ষমা চেয়ে লাইভ করো।’


তবে সেই লাইভের পরে তিনি অনুশোচনা প্রকাশ করেন। পরের ভিডিওতে মোহসিন তালুকদার বলেন, ‘লাইভের সময় আমার মাথাটা গরম ছিল, সে কারণে আমি আর স্থির থাকতে পারিনি। আপনাদের মনে যদি কোনো কষ্ট দিয়ে থাকি তাহলে মনে কষ্ট রাখবা না। আসলে আমি উত্তেজিত হয়ে কথাগুলো বলেছি। আমি হিন্দু ধর্ম নিয়ে কোনো কথা বলতে চাই না। যার যার ধর্ম সে নিয়ে থাকুক। এটা নিয়ে আমার কোনো কথা নেই। কিন্তু তাদের ধর্মের জন্য তো তাদের সেলিব্রেটি আছে।’

 

আরপি/ এআর




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top