রাজশাহী রবিবার, ২৬শে জুন ২০২২, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৯


জুমার খুতবা চলালীন দানবাক্স চালানো যাবে?


প্রকাশিত:
২৭ মে ২০২২ ১২:২২

আপডেট:
২৬ জুন ২০২২ ০৮:৩৪

ফাইল ছবি

জুমাবার মুমিনের কাছে একটি কাঙ্ক্ষিত দিন। এই দিনকে সাপ্তাহিক ঈদ বলা হয়েছে হাদিসে। সৃষ্টিজগতের শুরু থেকে দিনটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত। সপ্তাহের বাকি ছয় দিনের তুলনায় জুমাবার অধিক মর্যাদাসম্পন্ন হওয়ায় দিনটির আমলগুলোও অনেক ফজিলতপূর্ণ।

নবীজি (স.) বলেছেন, যে ব্যক্তি সুন্দরভাবে অজু করে জুমার জন্য মসজিদে এল তারপর চুপ থেকে খুতবা শুনল, তার দশ দিনের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হয়। আর যে নুড়ি স্পর্শ করল সে ‘অনর্থক’ কাজ করল। (সহিহ মুসলিম: ৮৫৭, কিতাবুল জুমা)

মুসল্লিদের জন্য মনোযোগ ও গুরুত্বের সঙ্গে জুমার খুতবা শোনা ওয়াজিব। খুতবা চলাকালীন কোনো কাজ করা, কথাবার্তা বলা জায়েজ নেই। এমনকি পাশে কেউ কথা বললে তাকে ‘চুপ করো’ বলতেও নিষেধাজ্ঞা এসেছে হাদিসে। আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (স.) বলেছেন—

জুমার দিন খুতবা চলা অবস্থায় যদি তোমার পাশের সাথীকে বলো- চুপ করো, তাহলে তুমি একটি অনর্থক কাজ করলে। (সহিহ বুখারি: ৯৩৪, সহিহ মুসলিম: ৯৩১)
উল্লেখিত হাদিসে যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো- কাউকে চুপ করতে বলা ভালো কাজ হওয়ার পরও খুতবার সময় সেটি অপরাধ। একইভাবে খুতবার সময় দানবাক্স চালানো অনর্থক ও গুনাহের কাজ বলে বিবেচিত হবে।

তাই ফতোয়া হচ্ছে—খুতবার সময় বাক্স চালানো নিষিদ্ধ। নিষিদ্ধ কাজে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত হওয়াও নিষিদ্ধ। (হেদায়া: ১/২৩১-২৩২, আদ্দুররুল মুখতার: ৬/৩৬০, ফতোয়ায়ে দারুল উলুম: ৫/১২১, ফতোয়ায়ে ফকিহুল মিল্লাত: ৪/৪০১)

নিঃসন্দেহে মসজিদের জন্য দান করা ও দান সংগ্রহ করা অনেক সওয়াবের কাজ। এসব কাজে মুসল্লিদের স্বতঃস্ফূর্তভাবে এগিয়ে আসা উচিত। কিন্তু দান সংগ্রহ করতে নামাজের সময় দানবাক্স চালানো কোনো আদর্শ পদ্ধতি হতে পারে কি না, তা ভেবে দেখার সময় এসেছে। কারণ, অনেক বুজুর্গানে দীন এ পদ্ধতিকে পছন্দের দৃষ্টিতে দেখেন না। তাই এজন্য উত্তম বিকল্প কী হতে পারে কর্তৃপক্ষের ভেবে দেখা দরকার।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মহিমান্বিত ‍জুমার দিনের যথার্থতা বোঝার ও তার মাহাত্ম্য রক্ষা করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

 

আরপি/এসআর-০৫



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top