রাজশাহী সোমবার, ৬ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৫শে মাঘ ১৪২৯

সুইডেনের বাজারে মিলছে রাজশাহীর পেয়ারা-বরই-পেঁপে


প্রকাশিত:
২২ জানুয়ারী ২০২৩ ২০:১৪

আপডেট:
৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২:২৩

ছবি: রাজশাহী পোস্ট

বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরের পর বহির্বিশ্বেও ছড়িয়ে পড়েছে রাজশাহীর পেয়ারা, বরই ও পেঁপে। আম প্রধান অঞ্চল রাজশাহীর বাঘা উপজেলার চরে আবাদ হওয়া এসব কৃষি পণ্য সুনাম ছড়িয়েছে সর্বত্রই।

সম্প্রতি এই উপজেলা থেকে ইতালিতে পাঠানো হয়েছে পেয়ারা ও বরইয়ের প্রথম চালান। আম, পেয়ারা ও বরইয়ের পর এবার রফতানি তালিকায় নতুনভাবে যুক্ত হলো পেঁপে।

রোববার (২২ জানুয়ারি) সুইডেনের বাজারে পাঠানোর জন্য বাগান থেকে প্রস্তুত করা হয়েছে পেয়ারা, বরই ও পেঁপে। বাঘা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লা সুলতান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, চাষি শফিকুল ইসলামের থেকে ১০০ কেজি পেঁপে, ১০০ কেজি পেয়ারা ও ৫০ কেজি বরই সংগ্রহ করেছে রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান বিএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (১৯ জানুয়ারি) বিকেলে ঢাকার রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স আদাব ইন্টারন্যাশনালের মাধ্যমে এক টন পেয়ারা ও ১০০ কেজি থাই বরই ইতালিতে পাঠানো হয়।

কৃষি কর্মকর্তা শফিউল্লাহ সুলতান জানান, আজ (রোববার) সাদি এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী চাষি শফিকুল ইসলামের বাগান থেকে ১০০ কেজি পেঁপে, ১০০ কেজি পেয়ারা ও ৫০ কেজি বরই সুইডেনে রপ্তানির জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। ঢাকায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কেন্দ্রীয় শ্যামপুর সেন্ট্রাল প্যাকিং হাউসে সেগুলো যাবে। সেখানে মোড়কজাতের পর এগুলো কার্গো ফ্লাইটে করে সুইডেনে পাঠানো হবে।

গত বুধবার (১৮ জানুয়ারি) উপজেলার পাকুড়িয়া গ্রামের সাদি এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী শফিকুল ইসলামের কার্যালয় থেকে পেয়ারা ও উপজেলা বাউসা গ্রামের শাইন ইকবালের বাগান থেকে বরই ঢাকায় পাঠানো হয়। পরে সেটা মোড়কজাতের পর কার্গো ফ্লাইটে করে ইতালিতে পাঠানো হয়।

তিনি বলেন, দেশিও ফল বেশি পরিমাণে রফতানির জন্য ঢাকার বিভিন্ন রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তার অংশ হিসেবে রফতানিকারক বিএইচ ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল মাধ্যমে ১০০ কেজি পেঁপে, ১০০ কেজি পেয়ারা ও ৫০ কেজি বরই সুইডেনে রফতানি করা হচ্ছে।

গত বছর উপজেলার আমচাষিরা কন্টাক্ট ফার্মিংয়ের মাধ্যমে আম চাষ করে বিদেশে আম রফতানি করেছেন। এবার পেয়ারা ও বরই পর পেঁপে চাষ করে দেশের গণ্ডি পেরিয়ে কৃষকরা বিদেশে রফতানি করছেন বলেও জানান কৃষি কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে সাদি এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী শফিকুল ইসলাম জানান, কন্টাক্ট ফার্মিংয়ের মাধ্যমে বিদেশে রফতানির উপযোগী আম, পেয়ারা, পেঁপে ও বরই নিজেদের জমিতে উৎপাদিত হচ্ছে। গত মৌসুমে ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যে ৩০ মেট্রিক টন আম পাঠিয়েছেন। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে যথাযথ প্রশিক্ষণ ও সহযোগিতায় আধুনিক চাষ শিখে আমের পাশাপাশি একইভাবে পেয়ারা-বরই ও পেঁপে চাষ করেছেন কৃষকরা।

৫০ বিঘা জমিতে পেয়ারা ও ৫০ বিঘা জমিতে বল সুন্দরী বরই ও রপ্তানির জন্য পরীক্ষামূলকভাবে ২ বিঘা জমিতে পেঁপে চাষ করেছেন। রপ্তানির বাজার পেলে পেঁপের চাষ বাড়াবেন বলেও জানান তিনি।

এদিকে কৃষি অফিসের তথ্যমতে, উপজেলায় চলতি মৌসুমে ১৫০ হেক্টর জমিতে বরই, ৩০৪ হেক্টর জমিতে পেয়ারা ও ৭৪ হেক্টর জমিতে পেঁপে চাষ হয়েছে। এর মধ্যে ৭০ শতাংশ চাষ হয়েছে পদ্মার চরে।

 

 

আরপি/এসআর


বিষয়: বাঘা কৃষি


আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top