রাজশাহী বুধবার, ১লা ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৮

স্পিরুলিনায় ভাগ্যবদল রাকিবুলের


প্রকাশিত:
২৩ নভেম্বর ২০২১ ০৯:৪৯

আপডেট:
১ ডিসেম্বর ২০২১ ০৩:০৫

ছবি: সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমুদ্র বিজয়ের গল্প শুনে কৃত্রিম জলাধার তৈরি করে বাণিজ্যিকভাবে সামুদ্রিক শৈবাল স্পিরুলিনা চাষ করে ভাগ্য বদলাচ্ছেন রাজশাহীর তানোর উপজেলার আমশো গ্রামের রাকিবুল সরকার। বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত এ সামুদ্রিক শৈবাল স্পিরুলিনা চাষ করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে মাসে প্রায় ৮০ হাজার টাকা আয় করছেন তিনি। বরেন্দ্রের লাল মাটিতে কৃত্রিম জলাধার তৈরি করে তিনি সমুদ্রের এই শৈবাল চাষে সফল হয়েছেন।

তার দেখাদেখি স্পিরুলিনা চাষে এগিয়ে আসছেন নতুন উদ্যোক্তারা। তবে মানুষের খাদ্যপণ্য হিসেবে বাজারজাতের আগে নিরাপদ ও টেকসই উৎপাদন নিশ্চিত করার তাগিদ দিয়েছেন গবেষকরা।

গবেষকরা বলছেন, স্পিরুলিনায় মাছ ও গরুর মাংসের তুলনায় তিনগুণ এবং ডিমের তুলনায় ছয়গুণ বেশি প্রোটিন রয়েছে। মিনারেল রয়েছে সয়াবিনের তুলনায় দুইগুণ বেশি। আটার চেয়ে চারগুণ বেশি ফাইবারও রয়েছে। গাজরের তুলনায় পাঁচগুণ ও পালং শাকের তুলনায় ৪০ গুণ বেশি ক্যারোটিন রয়েছে।

ক্যালসিয়াম রয়েছে দুধের তুলনায় ১০ গুণ বেশি। এছাড়া পালং শাকের তুলনায় ৬৫ গুণ বেশি এবং গরুর মাংসের তুলনায় ৩০ গুণ বেশি আয়রন রয়েছে স্পিরুলিনায়। ফলে স্পিরুলিনার বাণিজ্যিক চাষ পাল্টে দিতে পারে অর্থনীতির গতিধারা।

বিষয়টির প্রমাণও পেয়েছেন তানোর উপজেলার আমশো গ্রামের বাসিন্দা রাকিবুল সরকার। ১৭ হাজার লিটারের কৃত্রিম জলাধার থেকে এখন মাসে অন্তত লাখ টাকা আয় করছেন। বিনিয়োগের পাঁচ লাখ টাকা তুলেছেন প্রথম ছয় মাসেই। বছর ঘুরতেই দ্বিগুণ লাভের আশাও করছেন তিনি।

এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগ শুরুর গল্প শুনিয়েছেন রাকিবুল সরকার। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমুদ্র বিজয়ের পর দেশে ব্লু ইকোনমির অপার সম্ভাবনার কথা বলতেন। ব্লু ইকোনমি সম্পর্কে জানতে গিয়েই তিনি স্পিরুলিনার সন্ধান পান। এরপর ইউটিউব ঘেঁটে জানতে পারেন ভারত, চীনসহ ইউরোপ-আমেরিকার অনেক দেশেই এটির কৃত্রিম চাষ হচ্ছে। সিদ্ধান্ত নেন তিনিও স্পিরুলিনা চাষে নামবেন। এরপর ঝিনাইদহের কোটচাঁপুরের দেলোয়ার অ্যাগ্রো ফুড নামে একটি প্রতিষ্ঠানে গিয়ে হাতেকলমে প্রশিক্ষণ নিয়ে শুরু করেন স্পিরুলিনা চাষ।

একসময় চাতাল ব্যবসায় যুক্ত ছিলেন কলেজশিক্ষক রাকিবুল সরকার। সেই ব্যবসা এখন বন্ধ। আমশো মেডিকেল মোড়েই পরিত্যক্ত চাতালের এক পাশে স্পিরুলিনার জলাধার তৈরি করেছেন। এই বছরের ১ মার্চ প্রকল্পটি চালু হয়। এরপর থেকে প্রায় প্রতিদিনই আগ্রহী উদ্যোক্তারা আসছেন প্রকল্পটি পরিদর্শনে।

রাকিবুল সরকার জানান, তিনি ইট-সিমেন্টের ১৭ হাজার পানি ধারণক্ষমতার জলাধার তৈরি করেছেন। উপরে ছাউনি দিয়েছেন স্বচ্ছ প্লাস্টিকের টিন দিয়ে। যাতে সূর্যের আলো আসে সবসময়। চারপাশেও স্বচ্ছ পলিথিনের বেড়া ও নেট দেওয়া হয়েছে। খাদ্যপণ্য হওয়ায় সবসময় এটি নজরদারিতেই থাকে।

তিনি জানান, জলাধারটিতে সমুদ্রের পরিবেশ তৈরি করতে ৯ ধরনের রাসায়নিক মেশানো হয়েছে। বসানো হয়েছে অক্সিমিটার পাম্প। যাতে পানিতে অক্সিজেন এবং প্রবাহ দুটিই তৈরি হয়। শেষে মেশানো হয়েছে মাদার কালচার বা বীজ। সব মিলিয়ে প্রকল্পটিতে তার ব্যয় হয়েছে ৫ লাখ টাকা। পানির গুনাগুন বজায় রাখতে প্রতি ছয় মাস পর মেশাতে হয় রাসায়নিক। এই ব্যয় খুব বেশি নয়।

তিনি আরও জানান, স্পিরুলিনা আনুবীক্ষণিক শৈবাল। সপ্তাহে এক দিন এটি চিকন নেট দিয়ে ছেঁকে সংগ্রহ করতে হয়। সংগ্রহ করার পর প্রতি ১০ গ্রাম স্পিরুলিনার সঙ্গে এক গ্রাম লবণ মিশিয়ে শোধন করতে হয়। এরপর ড্রায়ার মেশিনে শুকিয়ে বায়ুরোধক পাত্রে সংরক্ষণ করতে হয়।

এটি দেশের সবচেয়ে বড় প্রকল্প জানিয়ে রাকিবুল সরকার বলেন, তার এই প্রকল্প থেকে প্রতি মাসে ১৪-১৫ কেজি শুকনো স্পিরুলিনা পাওয়া যায়। রোদ বেশি থাকলে উৎপাদন বাড়ে। প্রতি কেজি শুকনো স্পিরুলিনা বিক্রি হয় সাড়ে ৩-৪ হাজার টাকায়।

তিনি জানান, ক্রেতাদের চাহিদা মতো নুডুলস অথবা গুড়া স্পিরুলিনা সরবরাহ করছেন। এছাড়া নর্দান এগ্রোর মোড়কে স্পিরুলিনা ক্যাপসুল ‘এন-লিনা’ তৈরি করে বাজারজাত শুরু করেছেন তিনি। অনলাইনে এমনকি সশরীরে এসে অনেকেই কিনে নিয়ে যান। খরচ বাদে প্রতি কেজিতে অন্তত ১ হাজার টাকা লাভ থাকে।
নতুনদের প্রশিক্ষণ নিয়ে উদ্যোগ শুরুর পরামর্শ দিয়েছেন রাকিবুল সরকার। তিনি বলেন, কৃত্রিম জলাধারের পানিকে সমুদ্রের পানির মতো তৈরিতে বিভিন্ন রাসায়নিক মেশাতে হয়। কোন রাসায়নিকে কী পরিমাণ মেশাতে হবে এটি হাতেকলমে শেখা দরকার। তাছাড়া বাজারজাত নিয়ে কিছু সমস্যা রয়েছে। অনেকেই বাজার না পেয়ে চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন। ফলে উদ্যোগ শুরুর আগে বাজার যাচাই করা জরুরি।

এই উদ্যোগ প্রশংসনীয় বলে জানিয়েছেন দেশের খ্যাতনামা বিজ্ঞানী ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক ড. এম মনজুর হোসেন। তিনি বলেন, খোলা জলাধারে স্পিরুলিনা চাষ পুরোনো উদ্যোগ। কিন্তু আমাদের দেশে এটি নতুন। নিঃসন্দেহে এটি ভালো উদ্যোগ। স্পিরুলিনার ৮০ শতাংশ নানা ধরনের ভিটামিন রয়েছে। যা পরীক্ষিত।

এটি নতুন প্রযুক্তি না, সারা বিশ্বে স্পিরুলিনা ট্যাবলেট, ক্যাপসুল আকারে বিক্রি হয়ে থাকে। গবাদিপশু-লাইভস্টক ফিড তৈরিতে এটি ব্যবহার হয়। সেজন্য এখানে আধুনিক প্রযুক্তি প্রয়োগ করতে হবে। তারা সফলতা দেখিয়েছে। এখন টেকসই অগ্রগতি নিশ্চিত করতে গেলে এগুলো করতে হবে।
তিনি যোগ করেন, খোলা জলাধার নানাভাবে ‍দূষিত হতে পারে। বায়ুবাহিত নানা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ও ছত্রাক সেখানে প্রবেশ করতে পারে। স্পিরুলিনার সঙ্গে জন্মাতে পারে ক্ষতিকর ছত্রাক ও শৈবাল। যা দেখতে স্পিরুলিনার মতোই। এজন্য সহযোগী গবেষণাগার লাগবে।

সংগ্রহের সময় শুদ্ধিকরণে বিশেষ গুরুত্ব দেন এই গবেষক। তিনি বলেন, এগুলো করতে গেলে যে ধরনের শুদ্ধিকরণ প্রক্রিয়া থাকা দরকার সেটি তাদের কাছে আছে কিনা তা নিয়ে আমরা সন্দিহান। সেখানে যেসব কর্মী কাজ করছেন, তারা কোন নিয়ম মানেন, নির্দিষ্ট পোশাক পরেন কিনা, ঠিকমতো তারা হাত ধৌত করেন কি না আমাদের জানা নেই। এই বিষয়গুলো নিশ্চিত করে স্পিরুলিনা উৎপাদন করা জরুরি।

স্পিরুলিনা বাজারজাতের ক্ষেত্রে বাড়তি সতর্কতা মানার তাগিদ দেন অধ্যাপক ড. এম মনজুর হোসেন। তিনি বলেন, স্পিরুলিনা বাজারজাতের আগে কঠোর মান নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন।

জেনে রাখা ভালো

স্পিরুলিনা নামটি উদ্ধুত হয়েছে ল্যাটিন শব্দ "spira" হতে, যার অর্থ হচ্ছে পাকানো বা সর্পিলাকার। স্পিরুলিনা' হলো অতি ক্ষুদ্র নীলাভ সবুজ শৈবাল যা সূর্যালোকের মাধ্যমে দেহের প্রয়োজনীয় শক্তি উৎপাদন করে। এটি সাধারণত জলে জন্মায়। সামুদ্রিক শৈবাল নামেই এর বেশি পরিচিতি। বর্তমানে কৃত্রিম জলাধারে এর বাণিজ্যিক উৎপাদন হচ্ছে। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন, লৌহ ও একাধিক খণিজ পদার্থ।

সাধারণ খাদ্য হিসেবে তো বটেই নানা রোগ নিরাময়ে মুল্যবান ভেষজ হিসেবে দেশে-বিদেশে স্পিরুলিনার প্রচুর চাহিদা রয়েছে। স্পিরুলিনা একটি শক্তিবর্ধক সম্পূরক খাদ্য। প্রোটিন, ভিটামিন ও মিনারেলস সমৃদ্ধ প্রকৃতির আশ্চর্য খাবার স্পিরুলিনা। স্পিরুলিনার গুণাগুণ অনেক। বিশেষ করে প্রচুর ভিটামিন, লৌহ ও নীলাভ সবুজ রং থাকার কারণে স্পিরুলিনায় রয়েছে নানা ধরনের রোগ প্রতিরোধের উপাদান।

স্বাদ ও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াহীন স্পিরুলিনা নিয়মিত সেবন করলে দৈনন্দিন পুষ্টি চাহিদা পূরণ করে পুষ্টিহীনতা, রক্তশূন্যতা, রাতকানা, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, আলসার, বাত, হেপাটাইটিস ও ক্লান্তি দূর হবে। বিসিএসআইআর-এর বিজ্ঞানীরা ৬০ জন আর্সেনিকোসিস রোগীর উপর স্পিরুলিনা নিয়ে গবেষণা চালান। গবেষণায় দেখা গেছে যে, প্রতিদিন ১০ গ্রাম করে স্পিরুলিনা খাওয়ালে প্রায় ৪ মাস পর রোগী সম্পূর্ণরূপে সুস্থ্য হয়ে উঠে।

১ টেবিল চামচ বা ৭ গ্রাম শুকনো স্পিরুলিনার উপকারিতা এর মধ্যে রয়েছেঃ ২০ ক্যালরি ৪.০২ গ্রাম প্রোটিন  ১.৬৭ গ্রাম শর্করা ০.৫৪ গ্রাম চর্বি ৮ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম  ২ মিলিগ্রাম লোহা ১৪ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম ৮ মিলিগ্রাম ফসফরাস  ৯৫ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম ৭৩ মিলিগ্রাম সোডিয়াম ০.৭ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি আরও আছে থাইমিন, নিয়াসিন, রিবোফ্লেভিন, ফোলেট, ভিটামিন বি-৬, এ এবং কে।

স্পিরুলিনার ক্ষয়ক্ষতি ও কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও রয়েছে। স্পিরুলিনা হল সুতার মত ভাসমান ক্ষুদ্র শৈবাল যা ক্ষারীয় পানিতে জন্মে। অনেক শতাব্দি যাবৎ মধ্য আফ্রিকায় এটি খাদ্য হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে কারণ এর পুষ্টিগুণ অনেক বেশি। এখন খাদ্য হিসেবে স্পিরুলিনা ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। স্পিরুলিনা গুড়ো, ফ্লেক্স বা ট্যাবলেট আকারেও পাওয়া যায়।

স্পিরুলিনা গুড়ো এবং ফ্লেক্সগুলোকে সাধারণত জুস এবং স্মুদির সাথে খাওয়া হয়। স্পিরুলিনা শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে যদি একে অনিয়ন্ত্রিতভাবে খাওয়া হয়।

 

আরপি/ এমএএইচ-০৯

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top