রাজশাহী সোমবার, ১৫ই জুলাই ২০২৪, ১লা শ্রাবণ ১৪৩১


‘হ্যালো পুলিশ! আমি চোর, আমারে বাঁচান, গ্রেপ্তার করেন’!


প্রকাশিত:
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৮:০৭

আপডেট:
১৫ জুলাই ২০২৪ ১৩:৪০

গ্রেপ্তারকৃত হৃদয়। ছবি: সংগৃহীত

চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ে এবার পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছেন এক চোর। ‘জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯’-এ কল করে অনুরোধ করেছেন তাকে গ্রেপ্তারের! ঘটনা মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) ভোর সোয়া ৪টার। রাজধানীর কদমতলী থানাধীন খানকা রোডের পাসপোর্ট অফিসের পাশে একটি দোকান থেকে হৃদয় নামে এক ব্যক্তি ৯৯৯-এ ফোন করে এমন অনুরোধ করেন। পরে ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে গণপিটুনি থেকে রক্ষা ও উদ্ধারের পর গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

আসামি হৃদয় কদমতলী থানার মেরাজনগর ব্লক-বি এলাকার সোবহানের ছেলে। কল করে তিনি বলেন, ‘হ্যালো এটা কি পুলিশের কন্ট্রোল? আমি একটা দোকানে ঢুকছিলাম চুরি করতে, এখন লোকজন টের পাইয়া গেছে, আমারে তো পিটাইয়া মাইরা ফালাইবো, আমারে গ্রেপ্তার করেন। তাড়াতাড়ি খানকা রোডে পুলিশ পাঠান, আমারে বাঁচান।’

মঙ্গলবার (২৬ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক মো. আনোয়ার সাত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে কল পাওয়ার পর তাৎক্ষণিকভাবে কদমতলী থানায় বিষয়টি জানিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করা হয়। সংবাদ পেয়ে কদমতলী থানা পুলিশের একটি দল দ্রুত ঘটনাস্থলে যায়। ততক্ষণে জনগণ কলার হৃদয়কে ধরে কিছুটা পিটুনি দেওয়া শুরু করেছিল। হৃদয়কে ওই অবস্থা থেকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে আটক করে থানায় নেওয়া হয়।

এ ঘটনার সময় ৯৯৯ নম্বরে কল টেকারের দায়িত্বে ছিলেন কনস্টেবল মিঠুন সরেন। ৯৯৯ পুলিশ ডিসপাচারের দায়িত্বে ছিলেন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মো. রবিয়ার। কদমতলী থানা পুলিশ দলের নেতৃত্বে ছিলেন এসআই আল আমীন। আনোয়ার সাত্তার জানান, চুরির ঘটনায় হৃদয়ের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। পরে গ্রেপ্তার দেখিয়ে তাকে আদালতে তোলা হয়।

 

আরপি/আআ



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top