রাজশাহী রবিবার, ২৬শে জুন ২০২২, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৯


‘আমরা জনগণের সঙ্গে আছি’


প্রকাশিত:
২৭ মে ২০২২ ২৩:৪৫

আপডেট:
২৬ জুন ২০২২ ০৮:২৮

ফাইল ছবি

সন্ত্রাসীদের প্রতি কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ বলেছেন, আপনাদের সকল অপকর্ম ছাড়তে হবে। যদি না ছাড়েন তাহলে জনগণ আপনাদের ছাড়ানোর ব্যবস্থা করবে।

শুক্রবার (২৭ মে) রাঙ্গামাটি পুলিশ লাইন্সে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এমন হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

রাঙ্গামাটির ১৮ এপিবিএন, বান্দরবানের ১৯ এপিবিএন, ও খাগড়াছড়ির ২০ এপিবিএন এর সদর দফতর ছাড়াও সংস্থাটির ডিআইজি কার্যালয়ের (পার্বত্য জেলাসমূহ) ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আমরা জনগণের সঙ্গে আছি। দেশের সকল নিরাপত্তা বাহিনী জনগণকে সহায়তা করবে।

পাহাড়ে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টিকারী সন্ত্রাসীদের উদ্দেশে ড. বেনজীর আহমেদ বলেন, আপনারা ফিরে আসেন। পার্বত্য জেলার উন্নয়নে শামিল হন। আপনাদের অপহরণ খুনোখুনি, অশান্তির দুষ্ট চক্র থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। 

পুলিশের মহাপরিদর্শক বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে শান্তির সুবাতাস প্রতিষ্ঠার জন্য ১৯৯৭ সালে ‘শান্তি চুক্তি’ করা হয়। শান্তি চুক্তির মূল লক্ষ্য ছিল, এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন। প্রাণহানি, রক্তপাত, অশান্তি, খুনোখুনির পরিবর্তে এ অঞ্চলের মানুষকে বাংলাদেশের মূলধারার সঙ্গে যুক্ত করে এগিয়ে নেওয়াই মূলত শান্তি চুক্তির মূল উদ্দেশ্য।

এ সময় শান্তি চুক্তির রূপকার যিনি, তিনি আজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করে এটিকে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের জন্য পরম সৌভাগ্য বলে মন্তব্য করেন ড. বেনজীর আহমেদ।

আইজিপি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে এই অঞ্চলে আমরা রক্তের হোলি খেলার অপচেষ্টা লক্ষ্য করছি। রক্তপাত করে, অশান্তি সৃষ্টি করে এ অঞ্চলের মানুষকে বিভিন্নভাবে অত্যাচারিত করা হচ্ছে।

মাত্র গুটিকয়েক লোক সন্ত্রাসের সঙ্গে যুক্ত উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাষ্ট্র ও জনগণের কাছে এরা তুচ্ছ। সন্ত্রাস, অপহরণের বিরুদ্ধে একটাই কাজ আমাদের, বিজয়ী হওয়া। সবার হাত একত্রিত হলে সবকিছুই সম্ভব।

রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ডের বিচারের প্রসঙ্গ টেনে আইজিপি বলেন, এই এলাকায় অনেক রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। কিন্তু মামলার সাক্ষী দিতে কেউ এগিয়ে আসেননি। এ ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে প্রত্যেক সাক্ষীর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান আইজিপি।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব আখতার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং, ভারত প্রত্যাগত উপজাতীয় শরণার্থী প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসন এবং অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু নির্দিষ্টকরণ ও পুনর্বাসন সম্পর্কিত টাস্কফোর্সের চেয়ারম্যান কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার, সংরক্ষিত নারী আসন-৯ এর সংসদ সদস্য বাসন্তি চাকমা, ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল মো. সাইফুল আবেদীন, র‌্যাব মহাপরিচালক (অতিরিক্ত আইজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. আশরাফ উদ্দিন ও চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মো. আনোয়ার হোসেন প্রমুখ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

 

 

আরপি/এসআর-০৭



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top