রাজশাহী শুক্রবার, ৩০শে অক্টোবর ২০২০, ১৫ই কার্তিক ১৪২৭


সান্তাহার পৌর নির্বাচনে বিএনপির মনোনয়ন চান লায়ন ফরিদ আহমেদ


প্রকাশিত:
১৭ অক্টোবর ২০২০ ২০:৪৯

আপডেট:
৩০ অক্টোবর ২০২০ ০৫:৩৪

ফরিদ আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

বগুড়ার সান্তাহার পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী ডিসেম্বরে। এখনো তফসিল ঘোষণা হয়নি। তবে ইতিমধ্যে পৌর এলাকায় নির্বাচনী হাওয়া বইতে শুরু করেছে। সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে সম্ভাব্য বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী লায়ন ফরিদ আহমেদ মাঠে-ময়দানে আগাম প্রচার-প্রচারনা করে ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময়, উঠান বৈঠক ও কর্মী সমাবেশ শুরু করছেন। নির্বাচনে প্রার্থী হতে তিনি নানা ভাবে কেন্দ্রের মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করছেন, করোনাকালে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে নানা মানবিক উদ্যোগ নিয়েছেন।

ইতিমধ্যে তিনি পৌরবাসীর দোয়া কামনা করে নিজের ছবি সম্বলিত পোষ্টার লাগিয়ে গোটা পৌর এলাকা ছাপিয়ে ফেলেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভোটারদের কাছে নিজের কথা তুলে ধরার চেষ্টা করছেন।

জানা গেছে, লায়ন ফরিদ আহমেদ জন্ম বগুড়া জেলার আদমদীঘি উপজেলার সাগরপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা এ কে এম ফজলুল করিমের ছেলে। লায়ন ফরিদ আহমেদ রাজনীতিতে যোগ দিয়ে ছিলেন যখন তিনি বগুড়া পলিটেকনিক ইন্সিটিউটে ১৯৯৫ সালে বগুড়া পলিটেকনিক ইন্সিটিউটের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-বাপকসুর ধর্ম ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক নির্বাচিত হন।

একই বছর বাংলাদেশ কারিগরি ছাত্র পরিষদ বাকাছাপ এর কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৭ সালে উচ্চ শিক্ষা ও কর্ম জীবন শুরুর জন্য চলে আসেন ঢাকায় এবং জড়িয়ে পড়েন শ্রমজীবী ও পেশাজীবী আন্দোলনের সাথে অল্প দিনের মধ্যে শ্রমজীবী ও পেশাজীবী মানুষের মধ্যেও ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। যার ফলে ২০০৫-২০২০ ইং টানা ৮ বার ঢাকা মহানগরী ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে রেকর্ড সৃষ্টি করেন।

এর মাঝে ২০১৪ সালে জাতীয় সন্মেলনের মাধ্যমে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী নির্মাণ শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। একই সাথে তিনি জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল বগুড়া জেলা শাখার এক নম্বর সদস্য। ২০১২-১৩ সালে তিনি লায়ন্স ক্লাবস অফ ইন্টারন্যাশনাল ৩১৫বি ২ জেলায়, জেলা কো-চেয়ারপারসন নির্বাচিত হন। ২০১১ সালে আর্ত মানবতা সেবার জন্য গড়ে তুলেন লায়ন ফরিদ আহমেদ চক্ষু হাসপাতাল। লায়ন ফরিদ আহম্মেদ এখনো সক্রিয় ভাবে রাজনীতির সাথে জড়িত এবং তাঁর বিশ্বাস অনেক শক্ত।

শ্রমজীবী পেশাজীবী মানুষের মুক্তির লড়াইয়ের দূত লায়ন ফরিদ নিটোল গণতন্ত্র ও কল্যাণধর্মী অর্থনীতিতে বিশ্বাসী। সর্বশেষ তিনি দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন আর তিনি বিশ্বাস করেন এই যুদ্ধে সবার সন্মিলিত অংশ গ্রহণই পারে এদেশ থেকে দুর্নীতিকে চিরতরে দুর করতে। সান্তাহারে বর্তমানে তিনি দল-মত নির্বিশেষে জন সাধারনের মাঝেও সমাজসেবী হিসেবে পরিচিতি। তিনি এমন এক ব্যক্তিত্ব যিনি নিজের কথা না ভেবে কেবল জনগণের জন্য নিজেকে বিলিয়ে দিচ্ছেন। জনগণের দুঃখ-দূর্দশা লাগবেও রেখেছেন অগ্রণী ভুমিকা। তিনি ২০১০ সাল থেকে নিজ উদ্যোগে সান্তাহার পৌর এলাকার বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসায় শিক্ষা সামগ্রী, শীত বস্ত্র ও খেলার সামগ্রী বিতরন করেছেন। অসহায় ভূমিহীনদের সাহায্য করার লক্ষ্যে অক্রান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। কেবল তাই নয় যে কেউ বিপদে পড়লে তার ডাকে সর্বদা সাড়া দিচ্ছেন। এমনকি দল-মত নির্বিশেষে সবার উপকার করে চলেছেন। তার প্রচেষ্টা আর ভালোবাসায় অনেক অসহায় মানুষ উপকৃত হয়েছে।

সান্তাহার পৌরসভা নির্বাচন আসা প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে লায়ন ফরিদ আহমেদ বলেন, একটি পরিচ্ছন্ন-সবুজ-মানবিক শহর গড়তে যদি আমরা সবাই উদ্যোগী হই, দৃষ্টি ভঙ্গি প্রসারিত করি, ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে শহর নির্মাণে অংশ গ্রহণ করি, তবে অবশ্যই সান্তাহার বহু দৃশ্যমান পরিবর্তন আসবেই। যার নেতৃত্বে থাকবে জনগণ, আমি তাদের সাথে থাকতে চাই। আমি নাগরিকদের কাছ থেকে জানতে চাই, শুনতে চাই, শিখতে চাই। জানাতে ও দেখাতে চাই এবং পরিবর্তনের স্বপ্ন দেখি।

 

আরপি/আআ




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top