রাজশাহী সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর ২০২২, ২১শে অগ্রহায়ণ ১৪২৯


বাবাও পেয়েছিলেন নোবেল: কী ছিল গবেষণা?


প্রকাশিত:
৩ অক্টোবর ২০২২ ২০:৪০

আপডেট:
৫ ডিসেম্বর ২০২২ ০৪:১৮

ছবি: সংগৃহীত

চিকিৎসা বিজ্ঞানে এ বছর নোবেল পদক জিতে নিয়েছেন সুইডেনের বিজ্ঞানী সাভান্তে পাবো। সোমবার নোবেল কমিটি তার নাম ঘোষণা করে।

আজ নোবেল কমিটির ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ২০২২ সালে চিকিৎসাবিজ্ঞান ও শরীরতত্ত্বে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন সুইডেনের জিনবিজ্ঞানী সাভান্তে পাবো। বিলুপ্ত হোমিনদের জিনোম ও মানবজাতির বিবর্তন বিষয়ে গবেষণার জন্য এ পুরস্কার দেওয়া হয়েছে পাবোকে।

কে এই সাভান্তে? সাভান্তে পাবো বা সুভান্তে প্যাবো ১৯৫৫ সালের ২০ এপ্রিল সুইডেনের রাজধানী স্টকহোমে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তার মা এস্তোনিয়ান রসায়নবিদ কারিন পাবোর কাছে বড় হয়েছেন। তার বাবা ছিলেন নোবেল বিজয়ী বায়োকেমিস্ট সুন্যা বারিস্ট্রম। ১৯৮২ সালে চিকিৎসাক্ষেত্রে অবদানের জন্য বেংট আই. স্যামুয়েলসন এবং জন আর. ভেনের সঙ্গে নোবেল পুরস্কার পান সাভান্তের বাবা।

১৯৮৬ সালে উপসালা ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি ডিগ্রী অর্জন করেন সাভান্তে পাবো। কিভাবে এডিনোভাইরাসের ই১৯ প্রোটিন ইমিউন সিস্টেমকে সংশোধন করে তা নিয়ে গবেষণা করে ডক্টরেট ডিগ্রি অর্জন করে তিনি।

কী ছিল গবেষণা? সুইডিশ বংশাণুবিজ্ঞানী সাভান্তে বিবর্তনীয় জেনেটিক্সের ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ। তিনি নিয়ান্ডারথাল জিনোমের উপর ব্যাপকভাবে কাজ করেছেন।তিনি ১৯৯৭ সালে জার্মানির লিপজিগে ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর ইভোল্যুশনারি নৃবিজ্ঞানের জেনেটিক্স বিভাগের পরিচালক নিযুক্ত হন।

সাভান্তে প্যালিওজেনেটিক্সের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে পরিচিত, এ ধরনের শৃঙ্খলায় প্রাথমিক মানুষ এবং অন্যান্য প্রাচীন জনসংখ্যা অধ্যয়নের জন্য জেনেটিক্সের পদ্ধতি ব্যবহার করে।

১৯৯৭ সালে পাবো এবং সহকর্মীরা তাদের নিয়ান্ডারথাল মাইটোকন্ড্রিয়াল ডিএনএ ( এমটিডিএনএ ) এর সফল অনুক্রমের কথা জানিয়েছেন, যা নিয়ান্ডার উপত্যকার ফেল্ডহোফার গ্রোটোতে পাওয়া একটি নমুনা থেকে উদ্ভূত হয়েছিল।

২০০২ সালে পাবোর বিভাগ 'ভাষা জিন' সম্পর্কে ফলাফল প্রকাশ করে। এটিকে ভাষা প্রতিবন্ধী কিছু ব্যক্তির মধ্যে অভাব বা ক্ষতিগ্রস্থের কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

২০০৬ সালে পাবো নিয়ান্ডারথালদের সমগ্র জিনোম পুনর্গঠনের একটি পরিকল্পনা ঘোষণা করেন। ২০০৭ সালে তিনি টাইম ম্যাগাজিনের বছরের ১০০ জন সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় স্থান পান।

২০০৯ সালে শিকাগোতে আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য অ্যাডভান্সমেন্ট অফ সায়েন্স (AAAS) এর বার্ষিক সভায় ঘোষণা করা হয়েছিল যে ম্যাক্স প্ল্যাঙ্ক ইনস্টিটিউট ফর ইভোল্যুশনারি অ্যানথ্রোপলজি নিয়ান্ডারথাল জিনোমের প্রথম খসড়া সংস্করণ সম্পন্ন করেছে।

পাবোর নেতৃত্বে এই প্রকল্পটি আধুনিক মানুষের সাম্প্রতিক বিবর্তনীয় ইতিহাসের উপর নতুন আলোকপাত করবে।

২০১০ সালে পাবো এবং তার সহকর্মীরা সাইবেরিয়ার ডেনিসোভা গুহায় পাওয়া একটি আঙুলের হাড়ের ডিএনএ বিশ্লেষণ করে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেন। তার ফলাফল নির্দেশ করে যে, হাড়টি হোমো প্রজাতির একটি বিলুপ্ত সদস্যের অন্তর্গত ছিল যা এখনও স্বীকৃত হয়নি। তারা হলো ডেনিসোভা হোমিনিন। ডিএনএ বিশ্লেষণের মাধ্যমে প্রথমবার ডেনিসোভানের মতো অজানা হোমিনিন আবিষ্কার করা হয়েছিল।

একই বছরে পাবো এবং তার সহকর্মীরা সায়েন্স জার্নালে নিয়ান্ডারথাল জিনোমের একটি খসড়া ক্রম প্রকাশ করেন। তিনি এবং তার দল উপসংহারে পৌঁছান যে, সম্ভবত নিয়ান্ডারথাল এবং ইউরেশিয়ান (কিন্তু সাব-সাহারান আফ্রিকান নয়) মানুষের মধ্যে আন্তঃপ্রজনন হয়েছে।

প্রাচীন এবং শারীরবৃত্তীয়-আধুনিক মানুষের মধ্যে মিশ্রণের এই তত্ত্বের ওপর বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ের সমর্থন রয়েছে। যদিও কিছু প্রত্নতাত্ত্বিক এই উপসংহার সম্পর্কে সন্দিহান। নিয়ান্ডারথাল জিনগুলো প্রায় ৫০ হাজার থেকে ৬০ হাজার বছর আগে দক্ষিণ ইউরোপে ঘটেছে বলে অনুমান করা হয়।

২০১৪ সালে 'নিয়ান্ডারথাল ম্যান: ইন সার্চ অফ লস্ট জিনোম' বইটি প্রকাশ করেন সাভান্তে পাবো। সেখানে তিনি একটি স্মৃতিকথা এবং জনপ্রিয় বিজ্ঞানের মিশ্র আকারে মানব বিবর্তনের উপর তার চিন্তার সঙ্গে নিয়ান্ডারথাল জিনোমকে ম্যাপ করার গবেষণা প্রচেষ্টার গল্প বলেছেন।

২০২০ সালে তিনি করোনা মহামারিতে ভুক্তিভোগীদের হাসপাতালের ভর্তির প্রয়োজনীয়তার ক্ষেত্রেও এই জিনোমের সংযোগ খুঁজে পান।

মানব বিবর্তনবিষয়ক গবেষণায় সফলতার জন্য তিনি জেনেটিক্সে গ্রুবার পুরস্কার (২০১৩), লোমোনোসভ স্বর্ণপদক (২০১৪), জীবন বিজ্ঞানে যুগান্তকারী পুরস্কার (২০১৬), কেইও চিকিৎসা বিজ্ঞান পুরস্কার (২০১৬), প্রিন্সেস অফ আস্তুরিয়াস পুরস্কার (২০১৮), ডারউইন-ওয়ালেস পদক (২০১৯), জাপান পুরস্কার (২০২০), ম্যাসরি পুরস্কার (২০২১) সহ বহু পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।

সূত্র: বিবিসি, নোবেল পুরস্কার ওয়েবসাইট ও উইকিপিডিয়া

আরপি/ এসএইচ

 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top