রাজশাহী বৃহঃস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ই আশ্বিন ১৪২৯


২০২৫ সালে মহাকাশে ভ্রমণ করাবে চীন, টিকিটের দাম প্রকাশপ্রতীকী 


প্রকাশিত:
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২০:৩৩

আপডেট:
২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ২২:৫৮

সংগৃহিত

একজন প্রবীণ রকেট বিজ্ঞানী বলেছেন, চীন ২০২৫ সালে বাণিজ্যিক যাত্রীদের প্রথম দলকে অর্বাবিটাল স্পেসে পাঠাবে বলে আশা করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে প্রতিটি ফ্লাইটের মূল্য হবে ২ থেকে ৩ মিলিয়ন ইউয়ান (প্রায় দুই লাখ ৮৭ হাজার ডলার থেকে ৪ লাখ ৩০ হাজার ডলার)। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার দাম প্রায় দুই কোটি ৬৯ লাখ টাকা থেকে ৪ কোটি টাকা।

২০১৮ সালে লং মার্চ-১১ রকেট প্রকল্পের জেনারেল ডিরেক্টর এবং বেইজিংভিত্তিক রকেট কোম্পানি সিএএন স্পেস এর প্রতিষ্ঠাতা সিনিয়র রকেট বিজ্ঞানী ইয়াং ইকিয়াং এর মতে বর্তমানে মহাকাশ ভ্রমণের তিনটি পদ্ধতি রয়েছে।

প্রথমটি স্পেস স্টেশনে প্রবেশ করছে, যা পর্যটকদের শারীরিক ও মানসিক অবস্থার উপর কঠোর প্রয়োজনীয়তা নির্ধারণ করে।

দ্বিতীয়টি পর্যটকদের একটি কার্গো বিমানে করে মহাকাশে নিয়ে যায় যা উচ্চতা ছেড়ে দেওয়ার জন্য অন্য মহাকাশযানটিকে তুলতে ব্যবহৃত হয়। ভার্জিন গ্যালাকটিক একবার এই ধরনের ভ্রমণের ঘোষণা করেছিল। তার এর মূল্য ঘোষণা করে সাড়ে চার লাখ ডলার বা প্রায় ৫ কোটি টাকা।

ইয়াং এর মতে তৃতীয় পদ্ধতি (যেটির উপর চীন ফোকাস করবে) তা হলো উপকূলীয় মহাকাশ ভ্রমণ। এটি বেশিরভাগ যাত্রীদের জন্য আরও উপযুক্ত হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৮০ এর দশকে মহাকাশ খাতের বাণিজ্যিকীকরণ শুরু করে এবং ২০০২ সালে স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠিত হলে শিল্পটি তুলনামূলকভাবে পরিপক্ক হয়।

চীন ২০১৫ সালে তুলনামূলকভাবে দেরিতে এই খাতটি শুরু করেছিল। তবে শিল্পটিতে ইতোমধ্যে উচ্চ-গতির বিকাশ ঘটেছে।

চীন সম্ভবত ১০ বছরের মধ্যে বাণিজ্যিক মহাকাশ খাতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উন্নয়ন স্তরের সাথে মিলিত হবে। ইয়াং বলেন, চীনের সেক্টরটি অ্যাপ্লিকেশন এবং বাজার শক্তি দ্বারা চালিত একটি '২.০ যুগে' প্রবেশ করেছে, যা আগের থেকে ভিন্ন। '১.০ যুগ' হলো মৌলিক উত্পাদন এবং গবেষণা এবং উন্নয়ন (R&D) বৈশিষ্ট্যযুক্ত।

একটি শিল্প প্রতিবেদন অনুসারে, ২০২১ সালে চীনে ৩৭০ টিরও বেশি উদ্যোগ ছিল স্যাটেলাইট উত্পাদন, রকেট উৎক্ষেপণ এবং প্রদক্ষিণ উপগ্রহের উপর ভিত্তি করে।

ইয়াং বলেন, বাজারের চাহিদা এবং প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের মাধ্যমে দেশীয় বাণিজ্যিক মহাকাশ শিল্পকে বাড়ানো উচিত। চীনের বাণিজ্যিক মহাকাশ খাতের উন্নয়নের মূল চাবিকাঠি হল রকেট বা স্যাটেলাইটের প্রয়োগ।
আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে সাধারণ মানুষের এই সেক্টরে প্রবেশাধিকার রয়েছে।'

সূত্র: চায়না গ্লোবাল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক (সিজিটিএন)

আরপি/ এসএইচ 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top