রাজশাহী সোমবার, ১৭ই জুন ২০২৪, ৩রা আষাঢ় ১৪৩১


গ্রাহকদের জেনেক্স ইনফোসিস ইন্টারনেট সেবা দেবে রবি


প্রকাশিত:
৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ২২:৩৫

আপডেট:
৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ ০০:৩৫

মোবাইল অপারেটর রবির ইন্টারনেট সেবা দেবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানি জেনেক্স ইনফোসিস। এ বিষয়ে কোম্পানি দুটির মধ্যে একটি চুক্তি সই হচ্ছে বলে মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) থেকে জানানো হয়েছে।

দেশে মোট ৯ কোটি ৪৪ লাখ ইন্টারনেট গ্রাহক রয়েছে। এর মধ্যে ৮ কোটি ৮৬ লাখ মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। এটা মোট গ্রাহকের ৯৩ দশমিক ৮৭ শতাংশ।

ডিএসই জানিয়েছে, জেনেক্স ইনফোসিসের পরিচালনা পর্ষদ রবির সঙ্গে ৫ বছর মেয়াদি চুক্তি করেছে। এ চুক্তির ফলে জেনেক্স ইনফোসিস আইএসপি লাইসেন্সের মাধ্যমে রবির গ্রাহকদের মাল্টি-প্লে সেবা দেবে। এতে কোম্পানিটির সার্বিক মুনাফা বাড়বে।

এর আগে গত ২২ জুলাই দেশের ৪৮টি ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের (আইএসপি) লাইসেন্স বাতিল করে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি। এর মধ্যে সেন্ট্রাল জোনের রয়েছে ২৩টি ও ন্যাশনওয়াইড আইএসপি ২৫টি।

বিটিআরসি থেকে জানানো হয়, লাইসেন্স বাতিল হওয়া আইএসপিগুলো কোনো ধরনের ইন্টারনেট সেবা দিতে পারবে না। ৫ বছর মেয়াদি এসব লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হওয়ার ৬ মাস আগে পরবর্তী মেয়াদের জন্য লাইসেন্স নবায়নের আবেদন করার নিয়ম রয়েছে।

এদিকে লাইসেন্স বাতিল হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিটিআরসির পাওনা সব ধরনের বকেয়া পরিশোধের জন্য এক মাস সময় দেয়া হয়। এই সময়ের মধ্যে বকেয়া পরিশোধ না করলে টেলিযোগাযোগ আইন অনুসারে আইএসপিগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলা হয়।

বিটিআরসি থেকে এমন কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়ার এক মাস পর নতুন করে ইন্টারনেটে সেবার জন্য জেনেক্স ইনফোসিসের সঙ্গে চুক্তি করল মোবাইল অপারেটর রবি।

এদিকে রবির কাছে ৮৬৭ কোটি ২৩ লাখ টাকা পাওনা দাবি করেছে বিটিআরসি। দুই দফা চাপ দিয়েও নিরীক্ষা আপত্তির ‘পাওনা’ টাকা আদায় করতে না পেরে এবার মোবাইল অপারেটরটির লাইসেন্স বাতিলের নোটিশ দেয়ার উদ‍্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে সম্প্রতি ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করছি। না তারা এক টাকা দিয়েছে, না কানে তুলছে যে সরকারের কাছে তাদের দেনা আছে।’

তিনি বলেন, ‘গাহ্য যেহেতু করছে না, আমরা তো জাতীয় অর্থ পানিতে ফেলে রাখতে পারি না। এক্ষেত্রে কোনো ছাড় দিতে পারি না। আমাদের দিক থেকে বিটিআরসিকে বলা হয়েছে, তোমরা চূড়ান্ত নোটিশ দাও।’

এর আগে তাগাদা দেয়ার পরও টাকা পরিশোধ না করার যুক্তি দেখিয়ে গত ৪ জুলাই রবির ব্যান্ডউইথ ক্যাপাসিটি ১৫ শতাংশ কমিয়ে দেয়া হয়। এতে গ্রাহকের সমস্যা হওয়ায় ১৩ দিনের মাথায় ওই নির্দেশনা প্রত্যাহার করে বিটিআরসি। এরপর ২২ জুলাই রবিকে বিভিন্ন প্রকার সেবার অনুমোদন ও অনাপত্তিপত্র (এনওসি) না দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

১৬ কোটি ৮২ হাজার নিবন্ধিত মোবাইল সিমের মধ্যে রবির ৪ কোটি ৭৬ লাখ সিম রয়েছে। এ হিসাবে মোট গ্রাহকের ২৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ রবির।

আর পি /এম আই 



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top