রাজশাহী সোমবার, ২০শে মে ২০২৪, ৬ই জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১


রাজশাহী কলেজে নানা আয়োজনে নারী দিবস পালিত


প্রকাশিত:
১১ মার্চ ২০২৪ ২৩:৪১

আপডেট:
১২ মার্চ ২০২৪ ০০:১৩

ছবি: বর্ণাঢ্য র‌্যালি

এক শতাব্দীরও বেশি সময় ধরে ৮ মার্চকে নারী দিবস হিসেবে পালন করে আসছে সারাবিশ্বের মানুষ। আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে রাজশাহী কলেজের নারী অধিকার বিষয়ক সংগঠন ‘অনিন্দিতা’ সোমবার(১১ মার্চ) বর্ণাঢ্য র‌্যালি, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

নারী দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠানটি শুরু হয় বর্ণাঢ্য র‌্যালির মধ্য দিয়ে। সকাল ১০ টায় কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো আব্দুল খালেকের নেতৃত্বে র‌্যালিটি রবীন্দ্র-নজরুল চত্বর থেকে শুরু হয়ে পুরো ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে কামারুজ্জামান ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালি শেষে সকাল ১০ টায় শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান ভবনের ১০১ নং কক্ষে শুরু হয় নারীদের অধিকার সম্পর্কে আলোচনা সভা।

অনুষ্ঠানের সভাপতির বক্তব্যে অনিন্দিতা’র আহ্বায়ক প্রফেসর ড. ইয়াসমীন আকতার সারমিন বলেন, বর্তমানে নারীরা নিজেদের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হয়েছে। তারা নিজেদের সিদ্ধান্ত নিজেরা নিতে পারে। নারীরা হয়েছে সাহসী ও স্বাবলম্বী। যদি কারো যোগ্যতা থাকে তাহলে সে সব জায়গায় মর্যাদা ও সন্মান পাবে।এ সময় তিনি নারীদের সব কিছুতে যোগ্য ও দক্ষ জনশক্তি হয়ে নিজেদের তৈরি করার পরামর্শ দেন। নারীদের অধিকার নিয়ে বর্তমান সরকারের প্রশংসা ও করেন তিনি।

সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষার্থী মাইসা আক্তার বলেন, অতীতের চেয়ে বর্তমানে নারীরা হয়েছে অনেক স্বাধীন। অতীতের মতো ধর্মের দোহাই দিয়ে এখন আর নারীদেরকে ঘরে বন্দি করে রাখা যায় না। নারীরা তাদের স্বাধীনতা তাদের ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিয়ে সব কাজ করতে পারে, এটিই নারী দিবসের সার্থকতা।

কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক সভাপতির বক্তব্যে বলেন , পৃথিবীতে সব চেয়ে সন্মানিত জাতি হচ্ছে নারী জাতি। একটা সন্তানের কাছে তার মা যেমন সন্মানের আমাদের সকলের উচিত সেই ভাবেই প্রত্যেকটা নারীকে সন্মান করা। পুরুষ ছাড়া যেমন নারীরা চলতে পারে না তেমনি নারী ছাড়া কোনো পুরুষ চলতে পারে না। বর্তমান বাংলাদশের প্রধানমন্ত্রীর দিকে তাকালেই পুরো বিশ্ব বুঝতে পাড়ে যে এ দেশে নারীরা কতটা স্বাধীন ও নারীদের অধিকার সম্পর্কে এ দেশের জনগন কতটা সচেতন। কিন্তু বিশ্বে কিছু কিছু এলাকায় যেমন- ইরান, আফগানিস্তান এই সব জায়গায় নারীরা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আমাদের আসা যে সব জায়গায় নারীরা তাদের অধিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে অতিশীঘ্রই সেই জায়গাগুলোতে তারা তাদের অধিকার ফিরে পাবে।

প্রফেসর ড. ইয়াসমীন আকতার সারমিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রফেসর আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, সম্পাদক, শিক্ষক পরিষদ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধানসহ শিক্ষকবৃন্দ এবং শিক্ষার্থীরা। অনুষ্ঠানের শেষে শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসকে সংক্ষেপে আইডব্লিউডি বলা হয়ে থাকে। শ্রমিক আন্দোলন থেকেই উদ্ভূত হয় নারী দিবসের ধারণা। পরবর্তীতে দিনটি জাতিসংঘের স্বীকৃত পায় এবং প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী উদযাপিত হতে থাকে।আন্তর্জাতিক নারী দিবসের ওয়েবসাইট অনুসারে বেগুনি, সবুজ এবং সাদা হল আন্তর্জাতিক নারী দিবসের রঙ।

 

 

আরপি/এসআর



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top