রাজশাহী বৃহঃস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৫ই আশ্বিন ১৪২৯


শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত রাজশাহী কলেজ


প্রকাশিত:
৬ আগস্ট ২০২২ ১৫:০৪

আপডেট:
১৫ আগস্ট ২০২২ ১৭:১৬

শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত রাজশাহী কলেজ ক্যাম্পাস- ছবি: সংগৃহিত

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে টানা তিনবার দেশসেরার মুকুটধারী রাজশাহী কলেজে শুরু হয়েছে সম্মান (অনার্স) প্রথম বর্ষের ক্লাস। নতুন শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছে পুরো ক্যাম্পাস। এই বিদ্যাপীঠে ভর্তি হতে পেরে উৎফুল্ল শিক্ষার্থীরা। অনেকেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন।

নবাগত শিক্ষার্থীরা ক্লাসের পাশাপাশি ঐতিহ্যে মোড়ানো ক্যাম্পাস ঘুরে দেখছেন। উপভোগ করছেন এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য।

তবে ভর্তির তুলনায় আশানুরূপ শিক্ষার্থীর উপস্থিতি নেই ক্লাসে। কলেজ প্রশাসন বলছে, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা চলমান রয়েছে। এতে অংশ নিচ্ছেন ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের অনেকেই। পরীক্ষা শেষ হলেই ক্লাসে উপস্থিতির হার বাড়বে। আরও বেশি মুখর হয়ে উঠবে উত্তরবঙ্গের শিক্ষার বাতিঘর রাজশাহী কলেজ।

কলেজ প্রশাসনের তথ্যমতে, এ বছর স্নাতক সম্মানের সব বিভাগ মিলেয়ে আসন সংখ্যা ৪ হাজার ৮৮০টি। এখন পর্যন্ত ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ৭০০ জন। বর্তমানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার জন্য ব্যস্ত শিক্ষার্থীরা। তাই শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উপস্থিতির হার তুলনামূলক কম। ভর্তি পরীক্ষাগুলো শেষ হলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাড়বে।

সংশ্লিষ্টদের ভাষ্যমতে, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছে থাকলেও সবার সেই সুযোগ হয়ে ওঠে না। তবে রাজশাহী কলেজ শিক্ষার্থীদের সেই আক্ষেপ পুষিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের চেয়ে কোনো অংশে পিছিয়ে নেই কলেজটি। কারণ জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে দেশসেরার পাশাপাশি রাজশাহী কলেজ পেয়েছে মডেল কলেজের খেতাব।
নতুন শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রাজশাহী কলেজে ভর্তি হতে পেরে তারা আনন্দিত।

কথা হয় সমাজকর্ম বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী রুমকি খাতুনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘প্রথমত, আমি ভার্সিটিতে পরীক্ষা দেইনি। প্রথম থেকেই দেওয়ারও কোনো ইচ্ছা ছিল না। কলেজে আসার পর মনে হয়েছে ভার্সিটি থেকে কলেজটি কোনো অংশে কম নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘কলেজটি অনেক সুন্দর লেগেছে। পরিবেশটা অনেক সুন্দর, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। শিক্ষকদের পড়ানো থেকে শুরু করে সবকিছুই অনেক ভালো। নতুন হওয়ার কারণে কলেজের নিয়ম শৃঙ্খলার সঙ্গে মানিয়ে নিতে একটু সময় লাগছে।’

ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী সাঈদ আহমেদ সূর্য বলেন, ‘এটি একটা স্বপ্নের কলেজ। গ্রামের ছেলে উচ্চ-মাধ্যমিকে রাজশাহী কলেজে পড়ার স্বপ্ন থাকলেও সেটা পূরণ হয়নি। অনার্সে পড়ার মাধ্যমে সেই স্বপ্নটা পূরণ হচ্ছে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ক্যাম্পাস প্রথম দিনেই আমাকে মুগ্ধ করেছে।’

এই শিক্ষার্থী আরও জানান, উচ্চ মাধ্যমিকে তিনি যে কলেজে পড়েছেন সেখানে তেমন কোনো নিয়ম মেনে চলতে হয়নি। ছিল না শৃঙ্খলা। মাসের পর মাস ক্লাসে না গেলে সমস্যা হয়নি।

তিনি বলেন, ‘এসব দিক থেকে রাজশাহী কলেজ অনন্য। এখানে বাধ্যতামূলক ক্লাস করতে হয়।’

আরবি বিভাগের শিক্ষার্থী জাকারিয়া হোসেন বলেন, ‘এত সুন্দর পরিবেশ আর কোনো কলেজেই নেই, তাই দেশসেরা এই কলেজে ভর্তি হতে পেরে গর্বিত আমি। এখানকার পরিবেশ অনেক ভালো। মনোরম পরিবেশে নিয়মিত ক্লাস হচ্ছে । ক্লাস রুমগুলোও অন্যরকম। অন্যান্য কলেজের তুলনায় একদমই আলাদা।’

এই শিক্ষার্থী যোগ করেন, ‘ক্লাসরুমে আধুনিক প্রজেক্টর ব্যবস্থা রয়েছে। এ ছাড়া শিক্ষার মান উন্নয়নে গ্রুপভিত্তিক পড়ালেখা করা যায়। সবকিছু মিলিয়ে ক্লাসের পাশাপাশি কলেজের নিয়ম-শৃঙ্খলার সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে চলার চেষ্টা করছি।’

রাজশাহী কলেজ ভর্তি কমিটির প্রধান ও হিসাববিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. এন্তাজ আলী বলেন, ‘এ বছর স্নাতক সম্মানের সব বিভাগ মিলেয়ে আসন সংখ্যা ৪ হাজার ৮৮০টি। এখন পর্যন্ত ভর্তি হয়েছে ৩ হাজার ৭০০ জন। ভালোভাবে ক্লাস শুরু হলে বাকি আসন পরিপূণ হয়ে যাবে আশা করা যায়।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা শেষ হলে ক্লাসে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আরও অনেক বেশি হবে বলে জানান রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক।

তিনি বলেন, ‘২০ জুলাই থেকে ক্লাস শুরু হলেও আশানুরূপ শিক্ষার্থীদের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। বর্তমানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার জন্য শিক্ষার্থীরা এদিক ওদিক ছুটে বেড়াচ্ছে। তাই এখন পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ক্লাসে উপস্থিতির হার অনেক কম। সকল ভর্তি পরীক্ষা শেষ হলে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি আরও অনেক বেশি হবে।’

 

আরপি/ এসএইচ



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top