রাজশাহী শনিবার, ২২শে জুন ২০২৪, ৯ই আষাঢ় ১৪৩১

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীদের অবদানকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করল আরএমপি


প্রকাশিত:
৩০ মে ২০২৩ ০৬:৩১

আপডেট:
২২ জুন ২০২৪ ১৫:০২

ছবি: বর্ণাঢ্য র‌্যালি

রাজশাহীতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী বিশ্বের সব দেশের শান্তিরক্ষীদের অসামান্য অবদানকে গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হয়েছে।

সোমবার (২৯ মে) আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে তাদের প্রতি এ শ্রদ্ধা জানানো হয়।

দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচির অংশ হিসেবে সকাল ৯টার দিকে নগরীর আরডিএ মার্কেটের সামনে বেলুন-ফেস্টুন উড্ডয়ন ও কবুতর অবমুক্তকরণের মাধ্যমে কার্যক্রম শুরু করে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরএমপি)। পরে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে রাজশাহী কলেজ অডিটরিয়ামে এসে শেষ হয়।

রাজশাহী কলেজ অডিটরিয়ামে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত, পবিত্র গীতা পাঠ ও জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নিহত সদস্যদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালনের মধ্য দিয়ে আলোচনা সভা শুরু হয়।

‘Peace begins with me’ অর্থাৎ আমার মধ্যে শান্তির সূচনা প্রতিপাদ্যে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমান। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) আব্দুল বাতেন।

আলোচনা সভায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের রাজশাহী মহানগরীর কমান্ডার ডা. আব্দুল মান্নান, রাজশাহী ডিজিএফআই এর ডিএস কর্নেল জোবায়ের আহমেদ, রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক প্রমুখ বক্তব্য দেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি আব্দুল বাতেন বলেন, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে কর্তব্যরত অবস্থায় আত্মোৎসর্গকারী বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের অবদান অনস্বীকার্য। তিনি তাদের আত্মত্যাগ গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন। এ সময় তিনি জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী মিশনে বাংলাদেশ পুলিশের মূল কার্যক্রম তুলে ধরেন।

সেই সঙ্গে তিনি বাংলাদেশের সেনা, নৌ, বিমান ও পুলিশসহ বিভিন্ন বেসামরিক প্রতিষ্ঠানের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদানের কথা উল্লেখ করেন। এছাড়াও টেকসই উন্নয়নে শান্তি, আর শান্তির জন্য নিরাপত্তা প্রয়োজন বলে মন্তব্য করেন ডিআইজি।

সভাপতির বক্তব্যে আরএমপি কমিশনার আনিসুর রহমান আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষ্যে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষায় বাংলাদেশ পুলিশ ও অন্যান্য বাহিনীর গৌরব গাঁথা ভুমিকাসহ জীবন উৎসর্গকারীগণের পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। যুদ্ধ নয় শান্তি চাই, অস্ত্র মুক্ত বিশ্ব চাই বলেও মন্তব্য করেন পুলিশ কমিশনার।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিট ছাড়াও বীর মুক্তিযোদ্ধা, সেনাবাহিনী, র‌্যাব, বিজিবি, রাজশাহী জেলা প্রশাসন, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের প্রতিনিধি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রাজশাহী কলেজের শিক্ষক, স্টুডেন্ট কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম, রোভার স্কাউট, বিএনসিসি, গার্ল গাইডস্‌, রেড ক্রিসেন্ট, জনপ্রতিনিধিসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করে।

উল্লেখ্য, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম চালুর পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ ৮৪ হাজার বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী হিসেবে কাজ করেছে। এ পর্যন্ত বাংলাদেশ থেকে শান্তিরক্ষী মিশনে গিয়ে শাহাদাত বরণ করেছেন ১৬৪ জন। এর মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১২৯ জন, বাংলাদেশ পুলিশের ২২ জন, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১৪ জন ও বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর ৪ জন শহীদ হন। এ পর্যন্ত আহত হয়েছেন ২৪৯ জন। এর মধ্যে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ২২৫ জন, বাংলাদেশ পুলিশের ১২ জন, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ৬ জন ও বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর ৬ জন আহত হন। আহতদের কেউ কেউ পঙ্গুত্ব বরণ করেন।

 

 

আরপি/এসআর-০২



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top