রাজশাহী সোমবার, ২২শে এপ্রিল ২০২৪, ১০ই বৈশাখ ১৪৩১

প্রাণবৈচিত্র্য সুরক্ষায় রাজশাহীতে বৃক্ষ নিধন বন্ধের দাবি


প্রকাশিত:
২৩ মে ২০২৩ ০৫:২৭

আপডেট:
২২ এপ্রিল ২০২৪ ১৫:৫৬

ছবি: রাজশাহী পোস্ট

গাছ, পাখি এবং সকল প্রাণের সহাবস্থান, সবাই মিলে সুন্দর সুস্থ্যভাবে বেঁচে থাকবে এমন একটি সত্যিকারের গ্রীণসিটি গড়ার দাবি জানিয়েছেন রাজশাহীর তরুণ সমাজ।

রোববার (২২ মে) আন্তর্জাতিক প্রাণবৈচিত্র্য দিবস ২০২৩ উপলক্ষ্যে রাজশাহীর পদ্মাপাড়স্থ লালন শাহ মুক্ত মঞ্চে বরেন্দ্র ইয়ুথ ফোরাম’র উদ্যোগে ‘জলবায়ু ও প্রাণবৈচিত্র্য রক্ষার্থে গাছ,পাখি ও সকল জীবের প্রতি সংহতি’র আয়োজন করে। এতে রাজশাহীর বিভিন্ন নাগরিক সংগঠন ও নানা পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

তরুণরা দাবি করেন, গ্রীণসিটি হিসেবে পরিচিতি রাজশাহী নগরীর পুরাতন অনেক বৃক্ষ কর্তন করা হয়েছে নানামূখী উন্নয়নের কারনে। রাজশাহী সিটির উন্নয়ন হোক রাজশাহীর পরিবেশকে সুরক্ষা করে। বিগত কয়েক বছরে রাজশাহী শহরসহ এর আশ পাশের এলাকাতে অবকাঠামোগত উন্নয়নের কথা বলে নানা ভাবে গাছ কাটা হয়েছে। বিভিন্ন পার্ক এবং রাস্তার ধারে বড় বড় বৃক্ষগুলো কাটা হয়েছে।

যার ফলে সবুজ শহর হিসেবে রাজশাহীর পরিবেশ আগের তুলনায় বিনিষ্ট হচ্ছে। গাছকে কেন্দ্র করে নানাজাতের পাখি এবং প্রাণবৈচিত্র্যের সমাহার ছিলো এই রাজশাহীতে, কিন্তু দিনে দিনে বৈচিত্র্যময় পাখির সংখ্যা কমে যাচ্ছে। নগরে আগের তুলনায় উত্তাপ বেড়েছে।

বরেন্দ্র ইয়ুথ ফোরামের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আতিকুর রহমানের সঞ্চালনায় সংহতি অনুষ্ঠানে সভাপ্রধান হিসেবে বক্তব্য দেন বরেন্দ্র ইয়ুথ ফোরামর সভাপতি শাইখ তাসনিম জামাল, ইয়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ এর সভাপতি শামীউল আলীম শাওন, নবজাগরণ ফাউন্ডেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক লিমন ইসলাম, তরুণ সাংবাদিক সবনাজ মোস্তারি স্মৃতি, আদিবাসী যুব পরিষদের সভাপতি উপেন রবিদাস, বারসিক’র গবেষক শহিদুল ইসলাম, আমেরিকা প্রবাসী আকরাম হোসেন।

বরেন্দ্র ইয়ুথ ফোরাম’র সভাপতি শাইখ তাসনিম জামাল বলেন, আমদের গ্রীণসিটির বৈচিত্র্য কমে যাচ্ছে, আমরা চাই এই শহরের বৈচিত্র্য রক্ষায় প্রাকৃতিক জলাধার, বৃক্ষসহ, বায়ু ও পানি দুষণ বন্ধ করা হোক। ই

য়ুথ এ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ এর সভাপতি শামীউল আলীম শাওন বলেন, রাজশাহী শহরে উন্নয়নের দোহাই দিয়ে আর কোন বৃক্ষ কর্তন করতে দেয়া হবে হবেনা। আমরা উন্নয়নের বিরোধী নই, আমরা প্রকৃতি বান্ধব উন্নয়ন চাই, গাছ পালা, পাখির আবাস নষ্ট করে, নদীকে দূষণ করে কোন ধরনের উন্নয়ন আমরা চাইনা।

বারসিকের গবেষক শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রকৃতি সবার জন্য, এখানে সবাই তাঁর অধিকার ও মর্যাদা নিয়ে বাঁচতে চায়, আর সেই সুযোগ আমাদের মতো মানুষদেরই ঠিক করতে হবে। কীটনাশক রাসায়নিক দিয়ে মাটিকে হত্যা করা হচ্ছে, উন্নয়নের নামে সারা দেশে বৃক্ষ হত্যা করা হচ্ছে, পাখির খাদ্য ও বাসস্থান ধ্বংস করা হচ্ছে, আমাদের শ্বাস-প্রশ্বাস দম বন্ধে করে দিচ্ছে তথাকথিত এই উন্নয়ন।

এতে উপস্থিত ছিলেন বাইয়াস এর সভাপতি জয়নাল আবেদিন সবুর, টাটকা ফাউন্ডেশনের সভাপতি সোহেল হোসেন, স্বচ্ছলতা এসোশিয়েনের সাধারণ সম্পাদিক সালমান ফারসী, জিরোপয়েন্ট সিক্স এর মাসুম মাহবুব প্রমুখ। 

 

 

আরপি/এসআর-১২



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:

Top